করোনায় রেমডিসিভির ব্যবহারে পূর্ণ অনুমোদন দিল যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক: হাসপাতালগুলোতে কভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় ভাইরাস নিরোধক বিতর্কিত ওষুধ রেমডিসিভির ব্যবহারে পূর্ণ অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসন।

এ ব্যাপারে দেশটির খাদ্য ও ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ এফডিএ জানিয়েছে, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে দেখা গেছে, ভেকলুরি (রেমডিসিভির ওষুধের ব্র্যান্ড নাম) গ্রহণের মাধ্যমে করেনা থেকে দ্রুত আরোগ্য লাভ করা যায়।

এক বিবৃতিতে এফডিএ বলেছে- “ভেকলুরি কভিড-১৯ এর প্রথম কোনো চিকিৎসা যা, এফডিএ’র অনুমোদন পেল।”

অথচ, গত সপ্তাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রেমডিসিভির নিয়ে নিজেদের গবেষণা প্রতিবেদনের ফল তুলে ধরে জানায়, করোনা চিকিৎসায় অ্যান্টিভাইরাল ওষুধটির কার্যকারিতা নেই বললেই চলে।

তবে রেমডিসিভির নিয়ে ডব্লিউএইচও’র ট্রায়ালের ফল প্রত্যাখ্যান করেছে ওষুধটির উৎপাদক প্রতিষ্ঠান জিলিড।

গত মে মাসে করোনা রোগীর জটিল পরিস্থিতির ক্ষেত্রে রেমডিসিভির প্রয়োগের অনুমতি দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। এবার পূর্ণ অনুমতি দিল দেশটি।

সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর তার চিকিৎসার ক্ষেত্রেও এই ওষুধ দেওয়া হয়। তার দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে ওষুধটি কাজে দিয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এফডিএ’র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার করোনা চিকিৎসায় রেমডিসিভির ব্যবহারের পূর্ণ অনুমতি দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন অনুযায়ী, ওষুধটি পূর্ণ বয়স্ক ও ১২ বছর বয়সী শিশু বা এর বেশি বয়সী যাদের অন্তত ৪০ কেজি ওজন আছে এসব কভিড-১৯ রোগীর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে।

ব্যাপারটিকে কভিড-১৯ চিকিৎসায় মাইলস্টোন হিসেবে উল্লেখ করেছেন এফডিএ’র কমিশনার স্টিফেন হ্যান, “ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত পাওয়ার পর কঠোর মূল্যায়ন সাপেক্ষে আজকের এই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এটাকে কভিড-১৯ চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিক একটি মাইলফলক।”

যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বলছে, রেমডিসিভিরের কার্যকারিতা দেখতে করোনায় আক্রান্ত হালকা থেকে গুরুতর রোগীদের নিয়ে এলোপাতাড়ি বাছাই, নিয়ন্ত্রিত তিনটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করা হয়। সেসবের ফলাফলের ভিত্তিতেই ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

একটি ট্রায়ালে দেখা গেছে, ভেকলুরি গ্রুপ তথা রেমডিসিভির গ্রহণের পর কভিড-১৯ রোগী ১০ দিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে ওঠে।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ