করোনার হুমকি থেকে শিশুরাও বাইরে নয়

  • 10
    Shares

করোনাভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত হয় না, শিশুদের তেমন ক্ষতি হয় না, এমন সব ধারণাকে ভুল বলে উল্লেখ করেছে ইউনিসেফ। বিশ্ব শিশুদিবস সামনে রেখে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে করোনা মহামারিতে শিশুদের ক্ষেত্রে এর ভয়াবহ ও ক্রমবর্ধমান পরিণতি উল্লেখ করে বলা হয়েছে, আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে হালকা উপসর্গ দেখা গেলেও সংক্রমণের হার বাড়ছে এবং দীর্ঘ মেয়াদে শিশু ও তরুণদের পুরো একটি প্রজন্মের শিক্ষা, পুষ্টি ও সামগ্রিক কল্যাণের ওপর এর প্রভাব স্বাভাবিক জীবনকে বদলে দিতে পারে।

করোনা পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ সেবা পেতে বিঘ্ন এবং দারিদ্র্যের হার বৃদ্ধি শিশুদের ক্ষেত্রে আরও বড় হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে। এ সঙ্কট যত দীর্ঘ হবে, শিশুদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং সামগ্রিক কল্যাণের ওপর এর প্রভাব তত গভীর হওয়ার কথা বলা হয়েছে উল্লেখিত প্রতিবেদনে। পুরো একটি প্রজন্মের ভবিষ্যৎ ঝুঁকির মধ্যে থাকার কথাও বলা হয়েছে সেখানে।

৮৭ টি দেশের বয়সভিত্তিক তথ্য অনুযায়ী কোভিড-১৯ এ সংক্রমিত প্রতি ৯ জনের মধ্যে একজন ২০ বছরের কম বয়সী শিশু বা কিশোর-কিশোরী, যা এ দেশগুলোতে মোট আক্রান্ত ২ কোটি ৫৭ লাখ মানুষের ১১ শতাংশ। অর্থাৎ শিশুদের বিষয়টি মোটেই অবহেলার নয়।

প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, যেহেতু শিশুরা একে অন্যের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে দিতে পারে এবং বয়স্ক মানুষের মধ্যেও, এ ক্ষেত্রে জোরালো প্রমাণ রয়েছে যে, প্রাথমিক সুরক্ষা ব্যবস্থা কার্যকর থাকলে স্কুল বন্ধ রাখলে যে ক্ষতি হয়, তার চেয়ে বরং বেশি সুবিধা পাওয়া যায় স্কুল খোলা রাখলে। সমাজে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে স্কুলগুলোই একমাত্র চালিকাশক্তি নয় এবং শিশুরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্কুলের বাইরে থেকেই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। তাই কোভিডের কারণে শিশুদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য ও সামাজিক সেবা পেতে যে বাধাবিঘ্ন সৃষ্টি হয়েছে তা শিশুদের জন্য মারাত্মক এবং দীর্ঘ স্থায়ী হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে।

অতএব, করোনা সংক্রমণ থেকে শিশুদের রক্ষায় সতর্কতা ও সচেতনতার পাশাপাশি এর দীর্ঘমেয়াদি প্রতিক্রিয়া নিয়েও চিন্তা-ভাবনা করা জরুরি। মনে রাখা দরকার করোনার হুমকি থেকে শিশুরাও মোটেই বাইরে নয়।

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ