করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দেশজুড়ে সেনা মোতায়েন

সোনালী ডেস্ক: প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতে দেশজুড়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন শুর্ব হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে সেনাবাহিনী মাঠে নামা শুর্ব করেছে বলে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) পরিচালক আব্দুলৱাহ ইবনে জায়েদ জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, সেনা মোতায়েন শুর্ব হয়েছে। আজ (গতকাল মঙ্গলবার) কোনো কোনো জায়গায় হচ্ছে। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) কোনো কোনো জায়গায় মোতায়েন হবে। স’ানীয় প্রশাসনকে সহয়োগিতায় গতকাল মঙ্গলবার বিভিন্ন জেলায়-উপজেলায় ‘রেকি’ করা হবে। কী কী প্রয়োজন এবং কীভাবে সমন্বয় করা হবে তা নির্ণয় করা হবে? কোথায়ও ক্যাম্প স’াপন করার দরকার হলে তা স’াপন করা হবে। বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে প্রয়োজনে মেডিকেল সহায়তাও সেনাবাহিনী দেবে বলে তিনি জানান।
গতকাল মঙ্গলবার থেকে বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে প্রশাসনকে সহায়তার জন্য সেনাবাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্তের কথা আগের সংবাদ সম্মেলনে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ার্বল ইসলাম। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতামূলক ব্যবস’া গ্রহণের সুবিধার্থে সেনাবাহিনী প্রশাসনকে সহায়তায় নিয়োজিত হবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের সমন্বয়ে তারা জেলা ও বিভাগীয় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস’া, সন্দেহজনক ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন ব্যবস’া পর্যালোচনা করবে। সেনাবাহিনী বিশেষ করে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের কেউ নির্ধারিত কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক সময় পালনে ত্র্বটি বা অবহেলা করছে কি না, তা পর্যালোচনা করবে।
করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে ফরিদপুরের প্রশাসনের সহায়তায় ঢাকার সাভার সেনানিবাস থেকে সেনাবাহিনীর একটি দল ফরিদপুরে পৌঁছেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পৌঁছেই দলটির নেতা সাভার সেনানিবাসের ২৮ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাসুদ পারভেজ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জর্বরি সভায় যোগ দেন। ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, সিভিল সার্জন ডা. সিদ্দিকুর রহমান, পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামানসহ স্বাস’্য বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও অন্যান্য দ্বায়িত্বশীল কর্মকর্তারা সভায় উপসি’ত ছিলেন। ফরিদপুরে হাট-বাজারসহ জনসমাগমস’লে জনচলাচল সীমিত করার জন্য জেলা প্রশাসন থেকে গণবিজ্ঞপ্তি জারির পর জনচলাচল কমে গেছে। অফিস-আদালত পাড়ায় সাধারণ মানুষের উপসি’তি কমে গেছে। রাস্তাঘাটে অন্যান্য সময়ের তুলনায় সাধারণ মানুষের উপসি’তি কমে গেছে। ফরিদপুরের পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত ফরিদপুরে বিদেশফেরতের সংখ্যা বেড়ে দাড়িয়েছে ৫ হাজার ৭৭৩ জন। এর মধ্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ২ হাজার ৫২৩ জনের বিষয়ে খোঁজ নিয়েছেন তারা। তিনি বলেন, এখন ১ হাজার ২৭০ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্ধারিত সময় পার করেছেন ২ হাজার ৩১৬ জন।

শর্টলিংকঃ