ওয়ার্কার্স পার্টির জনসভার ফেস্টুনের ওপর মহানগর আ.লীগ নেতার ফেস্টুন

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরীতে ওয়ার্কার্স পার্টির বিভাগীয় জনসভার ফেস্টুনের ওপর মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফেস্টুন লাগিয়েছেন। এ নিয়ে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) হয়েছে।
ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য ও রাজশাহী মহানগরের সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু জানান, আগামী ২৯ ফেব্রæয়ারি রাজশাহীতে ওয়ার্কার্স পার্টির বিভাগীয় জনসভা অনুষ্ঠিত হবে। এই জনসভার প্রচারে এক সপ্তাহ আগেই নগরীজুড়ে তাদের ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে। গত বুধবার দিবাগত রাতে আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল আলম বেন্টু তার লোকজন দিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ওয়ার্কার্স পার্টির ফেস্টুনের ওপর নিজের ফেস্টুন টাঙিয়ে দিয়েছেন। এতে ওয়ার্কার্স পার্টির ফেস্টুনগুলো ঢেকে গেছে।
দেবু জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট এলাকায় বিষয়টি তাদের নজরে আসে। তখন তিনি নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারকে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে ডাবলু সরকার এবং নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক নাঈমুল হুদা রানা ও মোস্তাক আহমেদ সরেজমিনে পরিদর্শনে যান। আওয়ামী লীগের নেতারা তখন বেন্টুকে ফোন করেন এবং ফেস্টুনগুলো সরিয়ে নিতে বলেন।
কিন্তু এক ঘণ্টা পরও তার ফেস্টুন সরানো হয়নি। তাই ওয়ার্কার্স পার্টির কর্মীরাই নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট এলাকায় নিজেদের দলের ফেস্টুনের ওপর থেকে বেন্টুর ফেস্টুন সরিয়ে দেন। পরে এ নিয়ে নগর ওয়ার্কার্স পার্টির সম্পাদকমÐলীর সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি জিডি করেন। জিডি নং-১০৭৬। জিডিতে বলা হয়েছে, রাজশাহী ১৪ দলে বিভেদ সৃষ্টির ষড়যন্ত্র হিসেবে আজিজুল আলম বেন্টু ওয়ার্কার্স পার্টির ফেস্টুনের ওপর নিজের ফেস্টুন সাঁটিয়েছেন। তার উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত এমন কর্মকাÐে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।
আজিজুল আলম বেন্টুর এমন কর্মকাÐের বিষয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন গতরাতে বলেন, আমি রাজশাহীতে ছিলাম না। মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে এসেছি। বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। খোঁজখবর নিয়ে এ বিষয়ে বলতে পারব।
নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নওশের আলী বলেন, আমরা কারও ব্যানার-ফেস্টুনের ওপর নিজেদের ব্যানার-ফেস্টুন লাগাই না। সেখানে ওয়ার্কার্স পার্টি তো ১৪ দলের শরিক দল। তাদের ফেস্টুনের ওপর আজিজুল আলম বেন্টু যদি নিজের ফেস্টুন লাগান তবে তিনি কাজটা ঠিক করেননি। এটা আমরা সমর্থন করি না। বেন্টু ১৪ দলে বিভেদের চেষ্টা করছেন, ওয়ার্কার্স পার্টির এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নওশের আলী বলেন, তিনি তো নগর আওয়ামী লীগের পদেই আছেন। এখন পদে থেকে তিনি এটা কেন করলেন সেটা আমি বলতে পারব না।
অভিযোগের বিষয়ে আজিজুল আলম বেন্টু বলেন, ফেস্টুন নিয়ে কোনো সমস্যা হয়েছে কি না তা আমার জানা নেই। আর ফেস্টুন সরিয়ে নেয়ার জন্য দলের কোনো নেতা তাকে ফোন করেননি বলেও তিনি দাবি করেন।
নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মন বলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল আলম বেন্টুর বিরুদ্ধে থানায় একটি জিডি হয়েছে। তদন্ত করে এ ব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

শর্টলিংকঃ