এবারের বাজেট হবে গরিব সুরক্ষার: অর্থমন্ত্রী

  • 14
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে আরেকটি বাজেট পেশ করতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি জানিয়েছেন, মহামারির মধ্যে দরিদ্র জনগোষ্ঠী যেন তাদের জীবন-জীবিকা সচল রাখতে পারে, আগামী বাজেটে সেই বিষয়টি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের আগামী বাজেট হবে দেশের গরিব মানুষকে সুরক্ষা দেয়ার বাজেট। দরিদ্র জনগোষ্ঠী সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাবে।’

বুধবার বিকালে অর্থনৈতিক বিষয়ক ও ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকশেষে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এবছর ৩৩ লাখ ৩৯ হাজার পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এককালীন দুই হাজার ৫০০ টাকার ঈদ উপহার সুবিধাভোগিদের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধা হবে না। সুবিধাভোগীদের কাছে নগদ টাকা সরাসরি পৌঁছানোর ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা যেন তৈরি না হয়, এজন্য গত বছরের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানো হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘যারা প্রধানমন্ত্রীর নগদ টাকার ঈদ উপহারের সুবিধাভোগী তারা সবাই প্রযুক্তি ব্যবহার উপযোগী নন। একারণে অনেক ক্ষেত্রে টাকা পেতে বেশি সময় লাগবে, তবে সেটা কিন্তু বড় সমস্যা নয়। সুবিধাভোগীরা যেন সরাসরি নগদ অর্থ পায়, সেটা নিশ্চিত করতে আমরা নিরলস কাজ করছি।’

মুস্তফা কামাল জানান, যে পদ্ধতিতে টাকা পাঠানো হবে, সেই পদ্ধতিটা আরও উন্নত করার পাশাপাশি সবাই যদি তালিকাভুক্ত থাকেন, তাহলে কম সময়ে সবার কাছে টাকা পাঠিয়ে দেয়া যাবে।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, নগদ অর্থ সহায়তার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। যাতে স্বল্পতম সময়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠী নগদ টাকা পেয়ে যায়। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত দিনমজুর, রিকশাচালকসহ মোট ৩৩ লাখ ৩৯ হাজার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে ৮৩৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা দেয়া হবে। প্রত্যেক পরিবার প্রতি পাবেন নগদ দুই হাজার ৫০০ টাকা।

করোনার কারণে দারিদ্রসীমার নিচে নেমে যাওয়া জনগোষ্ঠীর জন্য বিশেষ কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তাদেরকে গরিব থেকে বের করে নিয়ে আসাই আমাদের লক্ষ্য। তাদের সুরক্ষায় আগামী বাজেটে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হবে।’

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ