ইফতারের আদর্শ খাবার কী? জেনে নিন পুষ্টিবিদের পরামর্শ

  • 4
    Shares

অনলাইন ডেস্ক: ইফতারে তেলে ভাজা খাবার এদেশে বেশিরভাগ মানুষের পছন্দ। ফলে জেনে না জেনে আমরা শরীরের ক্ষতি করছি।  স্বল্পখরচের অল্প পরিমাণের খাবারে কীভাবে স্বাস্থ্যকর ইফতার করা যায়-এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ড ডেইরি প্রোডাক্টাস বাংলাদেশ লিমিটেডের ক্লিনিক্যাল ডায়াটেশিয়ান ও এসআইবিএল ফাউন্ডেশন হাসপাতালের পুষ্টিবিদ রেবেকা সুলতানা রুমা।

তিনি বলেন, এবারের রোজা হচ্ছে গরমকালে। আমাদের দেশে নানা শ্রেণী-পেশার বিভিন্ন বয়সীরা রোজা রাখেন। এদের মধ্যে অনেকে বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। ফলে সবকিছু মাথায় রেখে ইফতারে খাদ্যসামগ্রী তৈরির পরিকল্পনা করতে হবে।

রেবেকা সুলতানা রুমা বলেন, বাঙালির ইফতারে প্রথা হয়ে গেছে, ভাজা-পোড়া খাবার দিয়ে শুরু করেন। পরে অন্যান্য খাবার গ্রহণ করেন। কিন্তু এতে কিছুটা হলেও আমাদের শরীরের ক্ষতি হচ্ছে। কারণ পেট দীর্ঘক্ষণ খালি থাকার পর তাতে তৈলাক্ত খাবার গেলে হজমের সমস্যা তৈরি করে। তাছাড়া এসব তৈলাক্ত খাবারের বেশিরভাগই বাইরে থেকে কেনা হয়। ফলে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, একাধিকবার ব্যবহৃত তেলে এসব তৈরি করা। এগুলো খেলে রোজায় ফুড পয়জনিংও হতে পারে।

আদর্শ ইফতার তৈরি বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা পুষ্টিবিদরা খাবারটাকে ছয়টি ভাগে ভাগ করে দেই। এর মধ্যে ইফতারের খাবারটা দুই ভাগে খেতে হবে। প্রথমে শুধু খেজুর ও পানি মুখে দিয়ে ইফতার করলেন, যাদের সুগার নেই, তারা বাসায় বানানো কোনো একটি শরবত রাখতে পারেন। এরপর নামাজ শেষ করে দ্বিতীয় ভাগে অন্যান্য খাবার খেতে পারেন। কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে দ্বিতীয় ভাগে এসে প্রতিদিন ভাজা-পোড়া খাবার খেলে শরীরে সমস্যা হতে পারে।

এজন্য এগুলোর পরিবর্তে চিড়া, কলা, দই বা একটু সুপ অথবা নরমাল পাকের খিচুড়ি অথবা ভাপে বানানো কিছু পিঠা রাখলে সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর হবে। অনেকে আবার সবজি দিয়ে লাল আটার রুটি খেতে পারেন। বড় কথা আমাদের সারা দিনের যে পুষ্টি চাহিদা, তা পূরণের জন্য যে ছয়টি পুষ্টি উপাদান আছে (আমিষ, শর্করা, স্নেহ পদার্থ, ভিটামিন, খনিজ লবণ ও পানি), সেগুলো ইফতারের খাদ্য তালিকায় রাখা জরুরি।

সূত্র: ডক্টর টিভি

 

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ