ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আট কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

বাগমারা প্রতিনিধি: বাগমারার গোয়ালকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর সরকারের বিরুদ্ধে ১৫৭ জন দরিদ্রদের নাম ভাঙিয়ে কর্মসংস্থান (ইজিপিপি) প্রকল্পের আট কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে পৃথকভাবে দু’টি অভিযোগ করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে গোয়ালকান্দি গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে আসাদুল ইসলাম ও অধির চন্দ্র প্রামানিকের ছেলে শ্যামল চন্দ্র অভিযোগ দু’টি দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গোয়ালকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে ২০২০-২১ অর্থ বছরে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থানের (ইজিপিপি) আওতায় মোট ১৫৭ জন ব্যক্তির নামের তালিকা তৈরি করা হয় এবং তাদের নামে জব কার্ডও ইস্যু করা হয়। কিন্তু জব কার্ডের তালিকাভুক্ত ১২৫ জন ব্যক্তি দরিদ্র কর্মসংস্থান প্রকল্পের আওতায় তাদের নাম থাকার বিষয়টি আদৌ জানেন না।

তারা কোনো দিন ওই প্রকল্পের আওতায় কোনো কাজ করেননি এবং সরকারি কোষাগার থেকে কোনো টাকাও ভোগ করনেনি। অথচ অতিদরিদ্র কর্মসংস্থান (ইজিপিপি) প্রকল্পের আওতায় তাদের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রায় দুই বছর ধরে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমগীর সরকার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের হামিরকুৎসা বাজার শাখার ম্যানেজারকে হাত করে প্রায় আট কোটি টাকা আত্নসাত করেছেন।

ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমগীর সরকার তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি টাকা আত্মসাত করেননি। যারা কাজ করেছে তাদেরকেই টাকা দেয়া হয়েছে। কর্মসংস্থান প্রকল্পের তালিকায় নাম থাকলেও হাজিরা খাতায় উপস্থিতি দেখাতে না পারলে তাদের টাকা দেয়া হয় না। হাজিরা খাতায় উপস্থিতি স্বাক্ষর করে যারা কাজে যোগ দেয় কেবলমাত্র তাদেরকেই টাকা দেয়া হয়।

বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ আহম্মেদ বলেন, এ বিষয়ে পৃথকভাবে দু’টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। অভিযোগ প্রমানিত হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ