ইউএনও ওয়াহিদা জনপ্রশাসনে বদলি, স্বামী স্বাস্থ্য বিভাগে

ওয়াহিদা খানম ও তার স্বামী মো. মেজবাউল হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

অনলাইন ডেস্ক: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং তার স্বামী রংপুরের পীরগঞ্জের ইউএনও মো. মেজবাউল হোসেনকে ঢাকায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বদলি করা হয়েছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় গত বুধবার এক প্রজ্ঞাপনে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা ইউএনওর সরকারি বাসায় ঢুকে ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীকে (৭০) হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়। বর্তমানে ঢাকার আগারগাঁওয়ে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটালে ওয়াহিদা খানমের চিকিৎসা চলছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ন্যাশনাল ইনস্টিটিউটটির যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। এখন তাকে শঙ্কামুক্ত বলা যায়। তার মাথার সব সেলাই কাটা হয়েছে। অস্ত্রোপচারের স্থানেও কোনো সমস্যা নেই।

তিনি আরো বলেন, তাকে এখনো ক্যাথেটার ব্যবহার করতে হচ্ছে ইউরিন পাস করার জন্য। আর তাই এখনো আমরা তাকে কেবিনে দেইনি। তবে তিনি দ্রুত সেরে উঠছেন।

এ ঘটনায় সর্বশেষ পুলিশের তদন্তে জানা যায় ইউএনও ওয়াহিদা খানমের অফিসের চতুর্থ শ্রেণির এক কর্মচারী এই হামলা চালিয়েছেন। ওই কর্মচারীর নাম মো. রবিউল ইসলাম। তিনি বর্তমানে পুলিশের রিমান্ডে আছেন। এর আগে র‌্যাব তাদের তদন্তে জানায় চুরির উদ্দেশ্যে ইউএনওর ওপর হামলা হয়।

ওয়াহিদা খানম ৩১ তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। তার স্বামী মেজবাউল হোসেনও একই ব্যাচে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা।

সোনালী/এমই

শর্টলিংকঃ