আমি মেশিনের মতো কাজ করি

অনলাইন ডেস্ক: জনপ্রিয় অভিনেত্রী মুনিরা মিঠু। নানা চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। গতকাল প্রথম গাড়ি কেনার অনুভূতি ফেইসবুকে শেয়ার করেছেন। তা অনেককে আবেগাপ্লুত করেছে। এ বিষয়ে তার সাক্ষাৎকার।

প্রথম গাড়ি…

১৯ বছর টানা অভিনয় করছি। কিন্তু এই প্রথম নিজের জন্য একটি গাড়ি কিনতে পেরেছি। অনেকে ভাবেন শোবিজ মানেই রাতারাতি গাড়ি-বাড়ি। কিন্তু সততার সঙ্গে কাজ করলে সবকিছু পেতেই সময় লাগে। তবে আমি ৫টি গাড়ি অনায়াসেই কিনতে পারতাম যদি না সিঙ্গেল মাদার হতাম। আমার দুই ছেলে উপন্যাস ও গল্পকে ঢাকার নামি স্কুল, কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয়ে পড়িয়েছি। পুরো সংসার সামলানোর পর গাড়ি কেনার টাকা জোগাড় করতে পারিনি। ফাইনালি ছেলের পছন্দের ব্র্যান্ড মিশন ব্লু বার্ড-এর সেকেন্ড হ্যান্ড একটি গাড়ি কিনেছি। আমার বড় ভাই প্রয়াত অভিনেতা চ্যালেঞ্জার একটি পুরনো গাড়ি চালাতেন। তারও ভীষণ ইচ্ছা ছিল একটি নতুন গাড়ি কেনার। প্রিমিও ব্র্যান্ডের একটি নতুন গাড়ি কিনে আমাকে ফোন করে আনন্দে কেঁদে ফেলেছিলেন। আমারও সেই অবস্থা এখন। এই গাড়ির জন্য কত কষ্ট, কত বিব্রতকর পরিস্থিতি, কত অপমান সহ্য করতে হয়েছে। আমার দুই পরিচালক মোস্তফা কামাল রাজ ও মাবরুর রশীদ বান্নাহসহ সব পরিচালকের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।

হুমায়ূন আহমেদের ভবিষ্যদ্বাণী…

হুমায়ূন আহমেদের হাত ধরেই তো অভিনয়ে আসা। একটি নাটকের কাজ করছিলাম, ছোট্ট একটা দৃশ্য বাকি ছিল, সে জন্য আমি রাত ১১টা পর্যন্ত বসে ছিলাম। সেদিন তিনি বলেছিলেন, অভিনয়ের ব্যাপারে তোমার যে ভালোবাসা ও ধৈর্য তাতে তুমি একদিন সুপারস্টার হবে। সুপারস্টার কি না জানি না, তবে আজ আমার জন্য অনেক পরিচালক অপেক্ষা করে থাকেন। অপেক্ষাকৃত কম জনপ্রিয় নায়ক-নায়িকা থাকলে আমার শিডিউল আগে নিয়ে অন্যদের শিডিউল মেলান পরিচালকরা। আমার ফেইসভ্যালুর জন্য সেই নাটকগুলো চ্যানেলে বিক্রি হয়। এ জন্য দর্শকের, পরিচালক ও আমার সহকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

চার সিনেমা…

আমি তো মেশিনের মতো কাজ করি। অনেক দায়িত্ব কাঁধে, তাই কাজ আমাকে করতেই হয়। তবে স্বস্তির বিষয় হলো এখন আমি ভালো চরিত্র পাই। মুক্তির প্রতীক্ষিত ‘বিশ^সুন্দরী’ সিনেমায় রুম্মান রশীদ খান আমার জন্য দারুণ একটি মায়াময় মায়ের চরিত্র লিখেছেন, পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী চরিত্রটি গাঁথতে খুব সাহায্য করেছেন। এখানে আমি পরীমনির মা। ‘ঢাকা ড্রিম’-এর চরিত্রটি খুব চ্যালেঞ্জিং। পতিতার চরিত্র, আমার ঠোঁটে ফোক সম্রাজ্ঞী মমতাজের একটি গান আছে। ‘নীল ফড়িং’-এ আমি একজন ডাকসাইটে অভিনেত্রীর চরিত্র করেছি। ‘আদম’ সিনেমার কাজ কিছুটা বাকি। ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমায় আমাকে ভেবে দারুণ একটি চরিত্র রেখেছিলেন পরিচালক জুয়েল। কিন্তু আমি চিকিৎসার জন্য ভারতে থাকায় কাজটি করতে পারিনি, এজন্য আফসোস হয়।

নতুন নাটক…

গত শনিবার মানিকগঞ্জে শুভাশীষ সিনহার একটি নাটকের কাজ করেছি। আমার সহশিল্পী ঢাকা কলেজে পড়ুয়া কয়েকজন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ। তাদের জীবনের কথা উঠে এসেছে। এই নাটকটির জন্য পরিচালক আমার জন্য দু মাস অপেক্ষা করেছেন। নাটকটির নাম খুব মজার, ‘শাবানার তিন কন্যা- মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা’। এতে আমি শাবানা ম্যাডামের খুব ভক্ত এক মায়ের চরিত্র করেছি। বেশকিছু ধারাবাহিকে কাজ করছি। সেগুলো হলো ‘ফ্যামিলি ক্রাইসিস’, ‘বউ শ্বাশুড়ি’, ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ ও ‘চিটিং মাস্টার’।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ