আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন ভোলাহাট উপজেলা চেয়ারম্যান

স্টাফ রিপোর্টার: চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে একটি মামলার ঘটনার বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন চেয়েছিলেন আদালত। কিন্তু মামলার তিনটি ধার্য্য তারিখ পার হয়ে গেলেও তিনি প্রতিবেদন দেননি। তাই কেন প্রতিবেদন দেয়া হয়নি সে বিষয়ে স্বশরীরে হাজির হয়ে ব্যাখা চান আদালত। মঙ্গলবার উপজেলা চেয়ারম্যান আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চান।

এ সময় আদালত তাকে ক্ষমা করেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান রাববুল হোসেন মঙ্গলবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হুমায়ুন কবীরের আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চান। আদালত তাকে ক্ষমা করেছেন। রাববুল হোসেন নিজেই বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, যেহেতু আদালতের আদেশ অনুযায়ী আমি কাজটা করতে পারিনি তাই আমি দুঃখ প্রকাশ করে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করি। তবে আদালতকে আমি আমার কাজের অগ্রগতির বিষয়ে অবহিত করি। আমি বলেছি, ঢাকায় গিয়েছিলাম এবং মামলার বাদী সময় না দেয়ার কারণে তদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করা সম্ভব হয়নি। তাই আদালত আমাকে ক্ষমা করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ভোলাহাটের খড়গপুর গ্রামের বাসিন্দা মাসুদ রানা গত ৪ অক্টোবর একটি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য আদালত উপজেলা চেয়ারম্যান রাববুল হোসেনকে নির্দেশ দেন। কিন্তু এক মাস ২৫ দিনেও উপজেলা চেয়ারম্যান তদন্ত প্রতিবেদন দেননি। এরই মধ্যে মামলার তিনটি ধার্য্য তারিখ চলে যায়।

প্রতিবেদন দেয়া না হলেও উপজেলা চেয়ারম্যান সময় বৃদ্ধিরও কোন আবেদন করেননি। অন্যদিকে ওই তিনটি ধার্য্য দিনে মামলার বাদী আদালতে গিয়ে হয়রানির শিকার হন। তাই গত ২৯ নভেম্বর আদালত উপজেলা চেয়ারম্যানকে মঙ্গলবার (০১ ডিসেম্বর) আদালতে স্বশরীরে হাজির হয়ে ব্যাখা দিতে বলা হয়। এ দিন উপজেলা চেয়ারম্যান আদালতে হাজির হন।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ