আজ টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী

সোনালী ডেস্ক: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষের রাষ্ট্রীয় কর্মসূচিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আজ মঙ্গলবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় আসছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে টুঙ্গিপাড়াসহ গোপালগঞ্জের সর্বত্র দেখা যায় সাজ-সাজ রব। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ঘোনাপাড়া থেকে টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য তোরণ নির্মাণ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে নেয়া হয় সব ধরনের প্রস্তুতি। টুঙ্গিপাড়া পৌর এলাকায় সড়কের দুই পাশের বাড়ি-ঘর লাল-সবুজের পতাকার আদলে রঙ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে দৃষ্টিনন্দন আলোকসজ্জ্বা করা হয়। এ উপলক্ষে জেলায় নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তবে করোনার কারণে জন্মদিনের অনুষ্ঠানকে সীমিত করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে আয়োজিত জাতীয় শিশুদিবসের সমাবেশ স্থগিত করা হয়েছে।
৫ মার্চ গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানার কাছে পাঠানো প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব-১ কাজী নিশাত রসুল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়। ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী এই দিন টুঙ্গিপাড়ায় সকাল ১০টায় জাতির পিতার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ সময় অনার গার্ড দেয়া হবে। পরে তিনি ১০টা ৪৫ মিনিটে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ এবং জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত শিশু সমাবেশে যোগ দেবেন। ১২ মার্চ শিশুদিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত শিশু সমাবেশ ও অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর যোগ দেয়ার বিষয়টি সংশোধন করে প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব-১ কাজী নিশাত রসুল স্বাক্ষরিত সংশোধিত আরেকটি চিঠিতে জানানো হয়, টুঙ্গিপাড়ায় সকাল ১০টায় জাতির পিতার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ সময় গার্ড অব অনার দেওয়া হবে। তবে ওই চিঠিতে শিশু সমাবেশের কোনো কর্মসূচি রাখা হয়নি।
রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের মূল স্তম্ভ, বঙ্গবন্ধু ভবন, মুক্তমঞ্চ, লাইব্রেরি, সংগ্রহশালা, ক্যাফেটরিয়া, মসজিদ, বকুলতলা চত্বর এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও উন্নয়নমূলক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বিভিন্ন অবকাঠামোতে রঙের কাজ ও ফুল বাগানগুলোতে বিভিন্ন ফুল গাছের চারা লাগানো হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সসহ জেলায় সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলোতে আলোকসজ্জ্বা করা হয়েছে। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগমনে নেতাকর্মীদের মধ্যে রয়েছে উৎসাহ-উদ্দীপনা। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের উচ্চপর্যায়ের ব্যক্তিদের স্বাগত জানাতে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি সংবলিত ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে গোপালগঞ্জ জেলাকে সাজানো হয়েছে। জেলায় চলছে সাজ-সাজ রব।
টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ আহম্মদ হোসেন মির্জা বলেন, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র নেতাকর্মীরা উজ্জ্বীবিত। তাদের স্বাগত জানাতে গোপালগঞ্জের বিভিন্ন সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণস্থানে তোরণ ও ব্যানার দিয়ে সাজানো হয়েছে। সরকারি অফিস আদালতে বর্ণিল আলোকসজ্জ্বা করা হয়েছে।
গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও জাতীয় শিশু দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় রাষ্ট্রীয়ভাবে বিভিন্ন কর্মসূচির প্রস্তুতি চলছে। রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে সঙ্গে ভোরে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হবে।

শর্টলিংকঃ