আক্রান্তের দুই মাস পর করোনামুক্ত হলেন সাংবাদিক

  • 716
    Shares

স্টাফ রিপোর্টার: করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রায় দুই মাস পর অবশেষে রাজশাহীর এক সাংবাদিকের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট হয়েছে। এই সাংবাদিকের নাম আসাদুজ্জামান নূর। তিনি স্থানীয় দৈনিক সানশাইন পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার। তিনি রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক।

শনাক্তের পর একে একে চারবার টেস্ট করানো হয়েছে; কিন্তু প্রতিবারই পজিটিভ ফল এসেছে তার। সর্বশেষ ২৯ জুলাই পাওয়া চতুর্থবারের ফলাফলে তার করোনা ধরা পড়ে। এরপর শুক্রবার (১৪ আগস্ট) পঞ্চমবারের মতো তার নমুনা পরীক্ষা করা হলে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট আসে।

নূরের করোনা শনাক্ত হয় গত ২০ জুন। এরপর টানা ৫৬ দিন করোনার সঙ্গে লড়াই করলেন তিনি। তবে এই সময়ে তার তেমন কোনো উপসর্গ বা শারীরিক অসুবিধা দেখা দেয়নি। করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়ার আগেই গত ১৪ ও ১৫ জুন তার শরীরে হালকা জ্বর অনুভব করেন তিনি।

সেদিন থেকেই স্বেচ্ছায় ঘরবন্দি ছিলেন। এরপর ১৮ জুন করোনা পরীক্ষার জন্য সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনে নমুনা প্রদান করেন। ২ দিন পর ২০ জুন প্রকাশিত রিপোর্টে প্রথমবার তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। এরপর থেকে তিনি হোম আইসোলেশনে ছিলেন। কিন্তু টানা চারবার তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এ অবস্থায় আসে ঈদুল আজহা। করোনা নিয়ে ফিরতে পারেননি গ্রামে। শহরে একা ঘরবন্দি অবস্থায় ঈদ চলে যায় নূরের।

শুক্রবার রাতে নূরকে ফোন করে যখন তার করোনা নেগেটিভ রিপোর্টের বিষয়ে জানানো হয়, তিনি আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন। স্মরণ করেন সৃষ্টিকর্তাকে। তারপর বলেন, আমি ভাবতে পারছি না! আমি কোন কথা বলতে পারছি না! আগে বাসায় ফোন করি, পরিবারকে খবরটা জানাই।

সাংবাদিক নূরের শরীরের টানা দুই মাস করোনা থাকার বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী ১২ সপ্তাহ বা ৮৪ দিন পর্যন্ত ব্যক্তি শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব থাকতে পারে। সুতরাং ৪০ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরেও যদি শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায় এতে বিচলিত হওয়ার কিছু নেই। শরীরে যদি কোন উপসর্গ না থাকে তবে উদ্বীগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আবু ইউসুফ বলেন, মানব শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত থাকতে পারে। কারও শরীরে ৪০ দিনেরও বেশি সময় ধরে ভাইরাস রয়েছে; কিন্তু কোন শারীরিক সমস্যা দেখা দিচ্ছে না। এক্ষেত্রে খুব বেশি দুশ্চিন্তার কিছু নেই। ৪০ দিন পার হওয়ার পরে বিপদের আশঙ্কা খুব একটা থাকে না।

সোনালী/আরআর

শর্টলিংকঃ