অমর ২১শে

সোনালী ডেস্ক: আনিসুজ্জামান ‘তারা’ কবিতায় লিখেছেন, ‘প্রতি ফাল্গুনে তারা ফিরে আসে/পত্র পুষ্পের মিতালিতে যেখানে বর্ণের সমারোহ/সেখানে নয়। হৃদয়ের সঙ্গে হৃদয়ের যোগে উচ্ছ¡লিত/প্রাণ-প্রবাহের মোহনা যেখানে, সেখানে/তারা ফিরে ফিরে আসে।’ শিল্প সাহিত্যের এমন কোন শাখা নেই যে, ভাষা আন্দোলনকে নিয়ে লেখা হয়নি। সব ক্ষেত্রে বর্বর পাকিস্তানিদের নানা রকম চক্রান্ত ছিল। তারা পূর্ব বাংলা থেকে বাংলাভাষাকে বিলীন করে জাতিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র চালায়। কিন্তু এই ষড়যন্ত্র বাংলার মানুষ সফল হতে দেয়নি।
পাকিস্তান শাসক গোষ্ঠীর সব চক্রান্ত রুখে দিয়ে সেদিন বাঙালিরা নিজের অধিকার আদায় করে নিয়েছিল। ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাঙালির অনেক অর্জন সূচিত হয়েছে। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকেই নতুন রাষ্ট্রের দুই খন্ডে দুই ভিন্ন ভাষা-সংস্কৃতির মানুষদের এক বন্ধনে বেঁধে রাখার কৃত্রিম প্রচেষ্টা শুরু হয়। পাকিস্তানের মুসলমানদের ঐক্যের সূত্র হিসেবে একটি ভাষা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করা হয়। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী রাষ্ট্রভাষা উর্দু করার সিদ্ধান্ত নিলে পূর্ব বাংলার বাঙালিরা তা প্রত্যাখ্যান করে। শিক্ষিত সমাজে প্রতিক্রিয়া প্রবল হয়। ছাত্ররা বাংলা ভাষাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সোচ্চার হয় এবং আন্দোলনে নেমে পড়েন। প্রথম ভাষা আন্দোলন শুরু হয় ১৯৪৭ সালের ৬ ডিসেম্বর এবং প্রত্যক্ষ সংগ্রামের রূপ নেয় ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ। ভাষা-আন্দোলনের বিস্ফোরণ ঘটে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রæয়ারি।
ভাষা আন্দোলনের চ‚ড়ান্ত রূপের দিন পুলিশ ছাত্রজনতার মিছিলে নির্বিচারে গুলি চালায়। সেদিন শহিদ হন রফিক, শফিউর, বরকত, জব্বারসহ নাম জানা অজানা আরও অনেকে। পুলিশের গুলির প্রতিবাদে বাংলার মানুষ প্রতিবাদে ফেটে পড়েন। শুরু হয় পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে একের পর এক প্রতিবাদ মিছিল সমাবেশ। ১৯৫২ সালের সেই দিনের স্মৃতি স্মরণীয় করে রেখেছে বাংলা একাডেমি। বাংলা একাডেমি মাতৃভাষা আন্দোলনের নানা বিষয় উপস্থাপন করেছে।
মাতৃভাষা হচ্ছে সেই ভাষা, চেষ্টা করে যা শিখতে হয় না। শিশু জন্ম নেয়ার পর থেকেই এই ভাষাতেই তার মনের ভাব প্রকাশ করে। পৃথিবীর ইতিহাসে একটি ব্যতিক্রমী ঘটনা মাতৃভাষাকে রক্ষা ও প্রতিষ্ঠা করার জন্য নিঃশেষে প্রাণদান এবং এ আত্মত্যাগের মাধ্যমে জাতিসত্তার উপলব্ধি। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রæয়ারি ভাষা-আন্দোলনের শহিদদের তাজারক্তে রাজপথ যখন রঞ্জিত হয় তখন এ দেশের মানুষ মাতৃভাষাকে নতুনভাবে অর্জন করে। এ অর্জন দিয়েছিল অদম্য সাহস, যুগিয়েছিল সীমাহীন প্রেরণা। ২১ ফেব্রæয়ারি একুশ নামে পরিচিত হলো। একুশ পূর্ব-বাংলার রাজনীতিতে মৌলিক পরিবর্তন ঘটায়। একুশ থেকে সৃষ্টি হয় ২১ দফা। এই ২১ দফা একটি ঐতিহাসিক দলিল। ২১ দফার চারটি দফা ছিল ভাষা ও একুশ সংক্রান্ত। ২১ দফা যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনি ইশতেহার হিসেবে জনমনে এতই আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল যে, ১৯৫৪ সালের প্রাদেশিক নির্বাচনে মুসলিম লীগের ভরাডুবি হয় এবং যুক্তফ্রন্ট ক্ষমতায় আসে।
১৯৫৫ সালের ৩ ডিসেম্বর বর্ধমান হাউসে বাংলা একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হয়। এই একাডেমি বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে শুরু করে। ধীরে ধীরে একুশের চেতনায় বাঙালি জাতীয়তাবাদের বিকাশ ঘটে। ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রæয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’ এমন একটি গান বাংলার জনগণকে ক্রমাগত নাড়া দিয়েছে। এই গানের প্রবল আবেগ বাঙালি মানসিকতায় পাকিস্তান নামের শাসক-শোষণে রাষ্ট্রকে অবিশ্বাস করতে শুরু করে। তাদের শৃঙ্খল ভাঙতে বাঙালির চেতনায় প্রথম চলে আসে ’৫২ ভাষা আন্দোলন। এ কারণেই তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বিভিন্ন অঞ্চলে শহিদ মিনার গড়ে ওঠে। প্রতিটি শহিদ মিনার যেন ভাষা শহিদদের অগ্নিশিখা। মাতৃভাষাকে কেবল অসৎ অভিসন্ধির হাত থেকে রক্ষা করেই এ দেশের মানুষ ক্ষান্ত হয়নি, তার জাতিসত্তার পরিচয়কে সাহিত্যের প্রতিটি ক্ষেত্রে এবং শিল্পকর্ম, সঙ্গীত ও নৃত্যে সমৃদ্ধতর করে বাঙালি মননশীলতাকে গতিময় করে তোলে। মাতৃভাষার উৎকর্ষ ও বিকাশে ক্রমাগত সক্রিয় এবং ঐতিহ্য সচেতন ছিল বলেই বাংলাদেশের জনগণ পরাধীনতার নাগপাশ থেকে স্বাধীনতাকে ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিল ১৯৭১ সালে।
বাংলাদেশের জনগণের এ সাফল্যের মহোত্তম স্বীকৃতি আসে ১৯৯৯ সালে। ওই বছর কানাডায় বসবাসরত একটি বহুভাষিক ও বহুজাতিক মাতৃভাষা প্রেমিক গ্রæপের আবেদনে এবং তৎকালীন বাংলাদেশ সরকারের প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে জাতিসংঘ পৃথিবীর প্রত্যেক জাতির মাতৃভাষার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য প্রতি বছর ২১ ফেব্রæয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের ঘোষণা দেয়।
ভাষা-আন্দোলন তথা একুশে ফেব্রæয়ারি একটি চেতনার নাম। যে চেতনা আমাদের বাঙালি জাতিসত্তার বিকাশ এবং জাতির মেধা, মনন ও সৃজনশীলতার পথকে বিস্তৃত করেছে। ভাষা-আন্দোলনের প্রভাবে সাহিত্য, সঙ্গীত, চিত্রকলাসহ সৃষ্টিশীলতার প্রতিটি ক্ষেত্রে গুণগত ও পরিমাণগত পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। আমাদের জাতীয় চেতনা বিকাশেও ভাষা-আন্দোলনের অবদান অনস্বীকার্য। ভাষা-আন্দোলন তার বহুমাত্রিক চরিত্র নিয়ে জাতীয় জীবনে বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। বাংলা একাডেমি ভাষা-আন্দোলনেরই ফসল। বাংলা একাডেমি তাই জাতির মননের প্রতীক হয়ে উঠেছে। জাতীয় আশা-আকঙ্খার সঙ্গে সঙ্গতি বজায় রেখে ভাষা-আন্দোলনের ঐতিহাসিক গুরুত্বকে বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্ম এবং বিশ্বের কাছে তুলে ধরার মূল দায়িত্ব বাংলা একাডেমির। তাই বাংলা একাডেমি ভাষা-আন্দোলনের ওপর জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করেছে। ২০১০ সালের ১ ফেব্রæয়ারি বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউসের দ্বিতীয় তলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ জাদুঘর উদ্বোধন করেন। ভাষা-আন্দোলন জাদুঘর পৃথিবীর কোন দেশে নেই। সেদিক থেকে এই জাদুঘরটি অনন্য।
ভাষা-আন্দোলন জাদুঘরে ভাষা-আন্দোলনের ইতিহাস আলোকচিত্র, সংবাদপত্র, স্মারকপত্র, ব্যঙ্গচিত্র, চিঠি, প্রচারপত্র, পা-লিপি পুস্তক ও পুস্তিকার প্রচ্ছদ এবং ভাষা শহিদদের স্মারকবস্তু দ্বারা উপস্থাপিত হয়েছে। উল্লেখযোগ্য নিদর্শনের মধ্যে রয়েছে ‘পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা বাংলা না উর্দু’ শীর্ষক পুস্তিকার প্রচ্ছদ, বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ছাত্রজনতার বিভিন্ন মিছিলের আলোকচিত্র, অগ্রসরমান মিছিলকে বাধা প্রদানের জন্য সারিবদ্ধ পুলিশবাহিনী, ধর্মঘট চলাকালে পুলিশের লাঠির আঘাতে আহত ছাত্রনেতা শওকত আলীকে শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক রিকশায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ছবি, ঢাকায় রেসকোর্স ময়দানের সমাবেশে বক্তৃতারত পাকিস্তানের স্থপতি মুহম্মদ আলী জিন্নাহর ছবি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-ছাত্রী সংসদের রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের সম্পর্কে প্রেস বিজ্ঞপ্তি, দৈনিক আজাদ ও সাপ্তাহিক ইত্তেফাকের গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ, ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রæয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ১৪৪ ধারা ভাঙার প্রস্তুতি, ভাষা শহিদদের আলোকচিত্র ও পরিচিতি, ভাষা শহিদদের বিভিন্ন স্মারকবস্তু প্রথম শহিদমিনারের আলোকচিত্র, প্রভাতফেরির আলোকচিত্র, উল্লেখযোগ্য ভাষা সংগ্রামীদের ছবি ও বক্তব্য, ভাষা-আন্দোলনের প্রথম কবিতা ও প্রথম সঙ্গীত ইত্যাদি প্রদর্শিত হয়েছে।

শর্টলিংকঃ