অনিশ্চিত জীবন নিয়ে রাস্তায় ২ শ মেডিকেল শিক্ষার্থী

স্টাফ রিপোর্টার: অনিশ্চিত জীবন নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন রাজশাহীর ২ শ মেডিকেল শিক্ষার্থী। তারা রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠ খড়খড়িতে অবস্থিত বেসরকারি শাহমখদুম মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী। শনিবার প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ ঘোষণা করা হবে। কিন্তু শিক্ষার্থীদের কী হবে, তার কোন সুরাহা হয়নি।
এ নিয়ে শিক্ষার্থীরা গতকাল রোববার সকালে ক্যাম্পাসের সামনে বিক্ষোভ করেন। সেখানে শিক্ষার্থীদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এরপর কলেজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনিরুজ্জামান স্বাধীন শিক্ষার্থীদের সেখান থেকে সরিয়ে দেন। পরে নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা ১৪ দফা দাবি জানান।
গত সাত বছর ধরে শাহমখদুম মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হলেও এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) অনুমোদন মেলেনি। ফলে চারজন শিক্ষার্থী এমবিবিএস পাস করেও ইন্টার্নশিপ করতে পারছেন না। কলেজটিতে এখন শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২ শ জন।
বিএমডিসির অনুমোদন না থাকায় তারা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েন। এ কারণে গত ৮ ফেব্রæয়ারি থেকে ক্লাস বর্জন করে ১৪ দফা দাবিতে তারা আন্দোলন শুরু করেন। গত শনিবারও তারা ক্লাস বর্জন করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ শুরু করেন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে বিকালে কলেজের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভায় কলেজটিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়।
এরপর ছাত্রদের শনিবার রাত ৮টা এবং ছাত্রীদের রোববার সকাল ১০টার মধ্যে হোস্টেল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু বর্তমান শিক্ষার্থীদের কী হবে তার কোনো সুরাহা হয়নি। এ কারণে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, এছাড়া তাদের সামনে কোনো পথ নেই।
যোগাযোগ করা হলে শাহমখদুম মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডা. হাসানুজ্জামান হাসু বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে এক সপ্তাহ ধরে কোনো ক্লাস হচ্ছিল না। ব্যবস্থাপনা পরিচালক দাবি পূরণে তাদের কাছে ১৫ দিনের সময় চেয়েছিলেন। কিন্তু আন্দোলনকারীরা তাদের দাবিতে অনড় ছিলো। তাই কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম অনির্দিষ্টকাল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কলেজের অভ্যন্তরীণ সমস্যাগুলোর সমাধান সম্ভব হলে প্রতিষ্ঠানটি আবার খুলবে বলেও জানান তিনি।

শর্টলিংকঃ