এফএনএস: আত্মজীবনী প্রকাশের পর আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার সঙ্গে তাঁর সহকর্মীরা কেন একই বেঞ্চে বসতে অস্বীকার করেছিলেন সেসব কারণ যদি এখন সামনে নিয়ে আসা হয় তাহলে আরো ‘দুর্গন্ধ’ ছড়াবে বলে মন্তব্য করেছেন রাষ্ট্রের প্রধান আইনজীবী মাহবুবে আলম।
যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী এস কে সিনহা তাঁর ঢাউস আকারের আত্মজীবনীমূলক বই ‘অ্যা ব্রোকেন ড্রিম’-এ কোন পরিসি’তির মধ্যে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তিনি পদত্যাগ করতে ‘বাধ্য হন’ তার সবিশেষ ব্যাখ্যার পাশাপাশি এ দেশের বিচারলয়ের নানা বিষয় নিয়েও কথা বলেছেন। বইটি বিশ্বব্যাপী অনলাইনে কেনাবেচার অন্যতম প্রতিষ্ঠান আমাজান বিক্রি করছে। নানাভাবে এর পিডিএফ কপি চলে এসেছে এ দেশের পাঠকদের হাতে। এই বই নিয়ে দেশে নানা গণমাধ্যম প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও সাবেক প্রধান বিচারপতির সাক্ষাৎকারও প্রকাশ করেছে প্রবাসী বাংলা টেলিভিশন। বইটি নিয়ে রাজনৈতিক মহল ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পক্ষে-বিপক্ষে নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইন কর্মকর্তা মাহবুবে আলম গতকাল মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলে প্রসঙ্গটির অবতারণা হয়। তবে বইটি বিস্তারিত পড়া হয়নি বলে জানান তিনি। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, উনি তো (এস কে সিনহা) স্পষ্ট করেননি, কেন ওঁর সঙ্গে সহকর্মী বিচারপতিরা একসঙ্গে বসতে (আপিল বিভাগের এজলাসে) চাননি। অন্য বিচারপতিরা তাঁর (এস কে সিনহা) সঙ্গে কেন বসতে চান না সেই কারণগুলো তো তিনি বলেননি? সেগুলো তিনি যদি উলেৱখ করেন, তবে দুর্গন্ধ আরো ছড়াবে। সেগুলোতে বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি আরো নষ্ট হবে। এ সময় সাংবাদিকরা জানতে চান সিনহার সঙ্গে অন্য বিচারপতিরা কেন বসতে চাননি। জবাবে মাহবুবে আলম বলেন, আমরা যা জেনেছি কাগজ পড়ে জেনেছি। কোনো বিচারপতির সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলিনি। উনার সঙ্গে অন্য বিচারপতি সহকর্মীরা বসতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। আমার মনে হয়, এমন ঘটনা পৃথিবীতে আর কোথাও ঘটেছে কি না! এস কে সিনহা বইয়ের মাধ্যমে যা করেছেন এতে বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি নিজেই নষ্ট করছেন এবং বর্তমান কোনো বিচারপতি সংৰুব্ধ হলে তাঁর (সিনহার) বির্বদ্ধে আইনগত ব্যবস’া নিতে পারবেন বলেও মন্তব্য করেন মাহবুবে আলম। সবচেয়ে বড় কথা হলো, বিচারপতি সিনহা যা করছেন এটা বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি উনি নিজেই নষ্ট করছেন। উনি সাবেক বিচারপতি হয়ে ওনার সঙ্গে যারা বিচারকার্য পরিচালনা করেছেন তাদের সম্পর্কে কোনোরকম কূট মন্তব্য করা বা নানারকম বাজে কথা বলা এটা খুবই অগ্রহণযোগ্য এবং এই কাজটা করে উনি নিজেই বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। আপিল বিভাগে এস কে সিনহার সহকর্মী ছিলেন সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্‌হাব মিঞা, সাবেক বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বর্তমান প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। মাহবুবে আলম আরো বলেন, এই সরকারের আমলে অনেক বিচারপতি (সাবেক প্রধান বিচারপতি মোস্তফা কামাল, মাহমুদুল আমীন চৌধুরী, মো. তাফাজ্জল ইসলাম, এ বি এম খায়র্বল হক, মো. মোজাম্মেল হোসেন) কাজ করে গেছেন। এদের কেউ তো সরকারের বির্বদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি?