এফএনএস: আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, আমি ওয়াদা যেটা করি এলাকার উন্নয়নের জন্য সেটি আমি বাস্তবায়ন করি। মওদুদ আহমদ দীর্ঘদিন ৰমতায় ছিলেন। তাঁর একটি কাজ উলেৱখযোগ্য আছে বলে এলাকাবাসীকে স্বাৰীকরে তিনি বলেন, আপনারা কি মওদুদের আমলে বড় কোন ধরনের কাজ করেছে বলে বলতে পারবেন? মওদুদ নিজ কে নিজ অবর্বদ্ধ করে জনগণের সমর্থন পাওয়ার জন্য নাটক করেছে।আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়া হয়েছে। এখন আর নামাজের সময়, অফিস আদালতে লোডশেডিং হয় না। আর একটি বড় কাজ বাকী আছে সেটা হলো গ্যাসের সমস্যা। এ এলাকায় গ্যাসের সার্ভে করা হচ্ছে। আগামি বার আবার ৰমতায় আসলে প্রতিটি ঘরে ঘরে গ্যাস পৌঁছে দেওয়া হবে। শেখ হাসিনার মন আকাশের মত বিশাল। তিনি আমাকে আওয়ামী লীগের মত বড় দলের সাধারণ সম্পাদক বানিয়েছেন। বড় মন্ত্রী হয়েছি, মন্ত্রী হওয়া বড় কথা নয়। আওয়ামী লীগ সৃষ্টির পর থকে চট্টগ্রাম বিভাগে আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক কেউ নির্বাচিত হয় নাই। আপনাদের দোয়ায় আমি সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছি। এ সম্মান আমার এলকার জনগণের। উত্তর বঙ্গে ট্রেনে গেছি লৰ লৰ লোক, সড়ক পথে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার যাওয়ার পথে আমার সভায় লৰ লৰ জনতার ঢল নামে। তিনি গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১টায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নতুন বাজার হাই স্কুল মাঠে প্রথম নির্বাচনি জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। চরকাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী শফি উল্যাহ সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালী জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি মোঃ শাহাব উদ্দীন, বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান বাদল, নোয়াখালী জেলা পরিষদের সদস্য আকরাম উদ্দিন চৌধুরী সবুজ, উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা হাজী খিজির হায়াত খান, জেলা আ.লীগের শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক নাজমুল হক নাজিম, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী র্বমেল, বাংলাদেশ স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদের সদস্য ফখর্বল ইসলাম রাহাত, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি নুর্বল করিম জুয়েল, মাহবুবুর রহমান আরিফ, আনিছুল হক, শাহাদাত হোসেন, মহিন উদ্দিন পলাশ প্রমুখ। মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের নেত্রী বয়স্ক ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, মাতৃকালিন ছুটি দিয়েছেন। আমি এ এলাকার জনগণের স্বার্থে স্কুল, কলেজ, মাদ্‌রাসা সহ বহু শিৰা প্রতিষ্ঠানে নতুন ভবন এবং কয়েকশ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা পাঁকা করে দিয়েছি। আর একবার ৰমতায় আসতে পারলে এ এলাকার রাস্তাগুলো ফোর লেইন করা হবে। তিনি ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মওদুদ সাহেব এলাকায় কিছুই করতে পারেননি। বরং তিনি ডাক বাংলোতে বলেছেন, ভাত ছিটালে কাকের অভাব নেই। আমাকে ভোট না দিলে রাস্তার ইট উঠিয়ে নিব। মওদুদ সাহেব একজন মৃত ব্যক্তির বাড়ি ৪০ বছর দখল করে রেখেছেন। কিন’ রাখতে পারেননি। মওদুদ সাহেব কয়দিন পর পর বাড়িতে এসে বিএনপির নেতাকর্মীদের সমস্যায় পেলেন। কারণ নেতাকর্মীর নামে মামলা আছে পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করে। তিনি বাড়িতে বসে অবর্বদ্ধের নাটক করেন। মওদুদ সাহেব বলেন, একমাস পর আন্দোলন। বিগত বিএনপি সরকারের আমলে আমার নির্বাচনি এলাকার নেতাকর্মীরা ৫ বছর এলাকায় থাকতে পারেননি। মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেছে। মা-বাবার মৃত্যুর খবর শুনেও ছেলেরা জানাযায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি।ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, বিএনপির নেতারা বলেছেন, রোযার ঈদের পর আন্দোলন আবার বলেন, কোরবান ঈদের পর আন্দোলন। দেখতে দেখতে দশ বছর, মানুষ বাঁচে কত বছর। বিএনপির আন্দোলন কারাগারে বেগম জিয়ার ব্যানিটি ব্যাগে। মওদুদ সাহেব সহ অনেকে মন্ত্রী ছিলেন। বেগম জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর ৫শত নেতাকর্মী নিয়ে নেতারা রাস্তায় বের হতে পারেননি। বাসায় এয়ারকন্ডিশন র্বমে বসে হিন্দি সিরিয়াল দেখেন। বিএনপি নালিশ পার্টি, বিএনপি এশটি ভূয়া দল। তারা জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রনে দেখা করেছেন বলে মিথ্যা কথা বলে জাতির সাথে প্রতারণা করেছেন।এর অগে তিনি কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত কর্মীসভা ও উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন ভিত্তিপ্রস্ত্ত স’াপন এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মিলনায়তনে উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন ভিত্তিপ্রস্ত্ত স’াপন ও আর এমপির প্রকল্পের অধীনে ৭০ জন দুস’ মহিলাদের মধ্যে ৬০লৰ টাকার চেক বিতরণ করেন।