বগুড়া প্রতিনিধি: অবশেষে ২৫ ঘণ্টা পর রাজধানী ঢাকার সাথে উত্তরা-ঞ্চলের রেল যোগাযোগ পুনঃ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুরে ৰতিগ্রস্ত সোনাতলার চকচকিয়া রেলসেতু মেরামত শেষে সবুজ সঙেকতের মাধ্যমে গাইবান্ধা টু সান্তাহার দোলনচাঁপা ট্রেন পারা-পারের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজধানীর সাথে উত্তরের রেল-যোগাযোগ শুরু করা হয়। এর আগে শনিবার সকালে নদীর পানির তোড়ে সোনাতলা উপজেলার দীঘলকান্দি ইউনিয়নের ভেলুরপাড়া ও কলেজ-স্টেশনের মাঝামাঝি এলাকার চকচকিয়া নামক স’ানের ২য় এবং ৩৫নং অ্যাড রেলওয়ে ব্রিজটির ২নং মূল পিলারের নিজ থেকে মাটি সরে যেতে থাকে। ১১টা পর্যন্ত ঝুকি নিয়ে বিভিন্ন ট্রেন ওই ব্রিজটি পারাপার করলেও পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারণে বেলা সাড়ে ১১টার মধ্য পিলারটি ওয়াশআউট হয়ে যায়। এসময় বিপজ্জনক অবস’ায় ব্রিজটি দেবে যাবার আশংকা দেখে দেয়। ফলে ব্রিজের উপর দিয়ে সব ধরনের রেলযোগাযোগ বন্ধ ঘোষণা করেন রেলকর্তৃপৰ। ফলে উত্তরের দিনাজ-পুর ও বৃহত্তর রংপুর জেলাসহ লাল-মনিরহাট, রংপুর, গাইবান্ধা, কুড়ি-গ্রামসহ বগুড়া জেলার ট্রেন যাত্রীরা দুর্ভোগের মুখে পড়েন।
এর ফলে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রংপুর থেকে বগুড়ার সান্তাহারগামী দোলনচাঁপা এক্সপ্রেস ব্রিজের নিকট আসলেও দুর্ঘটনার আশংকায় সেটি ভেলুরপাড়া রেলস্টেশনে ফেরত নেয়া হয়। পরে লালমনিরহাট থেকে ঢাকাগামী লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনও সোনাতলা স্টেশনে দুপুর ১টা থেকে থেমে রাখা হয়।
এর ফলে বৃহত্তর দিনাজপুর রংপুর অঞ্চরের রংপুর লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম সহ আশ পাশের সকল জেলার সাথে বগুড়া সহ রাজধানী ঢাকার সাথে সরাসরি রেল যোগাযোগ ব্যবস’া বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলীয় বিভাগের প্রধান প্রকৌ-শলী রমজান আলীর সাথে যোগা-যোগ করা হলে তিনি বেলা ২টার সময় দোলনচাঁপা ট্রেন চলাচলের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে রেল যোগাযোগ পুনঃস’াপনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি আরো জানান, এর আগে এক ঘণ্টাব্যাপী পরীৰা-নিরীৰার পর নিশ্চিত হবার পরই টেস্টপ্রোগ্রামের মাধ্যমে ৫ বার ট্রেন পারাপারের পর ৰতিগ্রস্ত ব্রিজের উপর দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রেন চলাচল শস’ করে। ফলে ঘটনার প্রায় ২৫ ঘণ্টা পর উত্তরের সাথে রাজধানীর সাথে সরাসরি রেল যোগাযোগ পুনঃস’াপন হয়।