স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটন বলেছেন, রাজশাহী নগরীর উন্নয়নে অন্তত ১০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ করা হবে।
বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি। এর আয়োজন করেন মেয়র নিজেই।
খায়র্বজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহীর ইতিহাসে সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা আজ (বৃহস্পতিবার)। এইদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী ওয়াসার উন্নয়নে চার হাজার ১৫০ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন। এ প্রকল্পের মাধ্যমে রাজশাহী সিটি করপোরেশন ছাড়াও নওহাটা ও কাটাখালী পৌরসভাতেও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হবে। কারণ প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে পদ্মা নদীতে পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা করা হবে। যাতে শুষ্ক মৌসুমেও পর্যাপ্ত পানি থাকে।
খায়র্বজ্জামান লিটন বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা কমপেৱঙ ভবন আছে। এর বাইরেও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আলাদা ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। যাতে মুক্তিযোদ্ধারা সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা পায়।
এছাড়া সাংবাদিকদের বসবাসের জন্যও আবাসিক ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। সব প্রেসক্লাবগুলোকে এক কাতারে নিয়ে আসার জন্য প্রেসক্লাব কমপেৱঙ ভবন নির্মাণেরও উদ্যোগ নেওয়া হবে।
সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক জিনাতুন নেসা তালুকদার, মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান রাজা, রাজশাহী সাংবাদিক কল্যাণ তহবিলের চেয়ারম্যান ও দৈনিক সোনালী সংবাদের সম্পাদক মো: লিয়াকত আলী, প্রবীণ সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান খান আলম, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ, রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান শ্যামল প্রমুখ। পরিচালনা করেন, মুক্তিযোদ্ধা কবি র্বহুল আমিন প্রামাণিক।