এফএনএস: চৌদ্দ বছর আগে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা ঘটনার দুই মামলার রায় ঘোষণার দিনে রাজধানীতে সতর্ক অবস্থানে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রায় ঘিরে রাজধানীতে নিরাপত্তাজনিত কোনো হুমকি নেই বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে শিক্ষাবৃত্তি বিরতণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার। চৌদ্দ বছর আগে ২০০৪ সালের ২১ অগাস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে ২৪ জনকে হত্যার ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা দুই মামলায় ১০ অক্টোবর রায় ঘোষণার দিন রাখা হয়েছে। দুই মামলায় যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার এক নম্বর দ্র্বত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন রায়ের এই দিন ঠিক করেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমান, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ৪৯ জনের ভাগ্য জানা যাবে এদিন।
ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান বলেন, আগামীকাল (আজ বুধবার) ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় হবে। এ রায়কে ঘিরে কোনো নিরাপত্তা হুমকি নেই। নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ারও কোনো সুযোগ নেই। তিনি বলেন, এটি মহামান্য আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রমের একটি অংশ। আমাদের নজরদারি রয়েছে, আমরা সতর্ক রয়েছি, আমরা প্রস্তুত আছি যাতে কোনো স্বার্থান্বেষী মহল জনগণের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার অপচেষ্টা করতে না পারে। রায়কে ঘিরে কোনো ধরনের নৈরাজ্য বরদাস্ত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি। নগরবাসীকে আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ তাদের সাংবিধানিক এবং আইনি দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে সবার জানমালের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। এদিকে রায়ের দিন আদালত পাড়া ও আশপাশের এলাকায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালবাগ বিভাগের পুলিশের উপকমিশনার মোহাম্মদ ইব্রাহীম খান। তিনি বলেন, আদালতের আশপাশের ভবনের ছাদে নিরাপত্তাবাহিনী থাকবে এবং পোশাকে ও সাদা পোশাকে যথেষ্ট সংখ্যক নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবে। যথেষ্ট নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বিচারকাজ চলার সময় আদালতের আশপাশের এলাকায় যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে। র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক মো. কাইয়ুমুজ্জামান খান জানিয়েছেন, তাদের পক্ষ থেকেও যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
চট্টগ্রামে ১৭ স্পটে অবস্থান নেবে আওয়ামী লীগ: চট্টগ্রাম শহরের ১৭ স্পটে অবস্থান নেবে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে কেন্দ্র করে সম্ভাব্য নাশকতা প্রতিরোধে আওয়ামী লীগের পৰ থেকে ওই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বুধবার গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। ওই আলোচিত মামলার রায়কে কেন্দ্র করে গতকাল মঙ্গলবার থেকে আগামীকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তিন দিন শহরের ১৭টি স্পটে দলের অবস্থান কর্মসূচি চলবে। এতে দিনব্যাপী আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা স্ব-স্ব ওয়ার্ডে অবস্থান করবেন। একই সঙ্গে সরকারের উন্নয়নের প্রচারপত্র বিলিও করবেন। শহরের স্পটগুলো হচ্ছে- দার্বল ফজল মার্কেট চত্বর, ২১ নম্বর জামালখান, ৩২ নম্বর আন্দরকিলৱা ও অঙিজেন মোড়, ২২ নম্বর এনায়েত বাজার, ৩০ নম্বর পূর্ব মাদারবাড়ি, ৩১ নম্বর আলকরণ, ৩৩ নম্বর ফিরিঙ্গিবাজার, ৩৪ নম্বর পাথরঘাটা ওয়ার্ড, দেওয়ানহাট মোড়, ১৩ নম্বর পাহাড়তলী, ১৪ নম্বর লালখান বাজার, ২৩ নম্বর উত্তর পাঠানটুলী ২৯ নম্বর পশ্চিম মাদারবাড়ি ওয়ার্ড, আন্দরকিলৱা মোড়, ও ২৪ নম্বর উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ড।