বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : শিৰা ও গবেষণার মানোন্নয়নের লৰ্যে চীনের হুয়াজং কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) সমঝোতা স্মারক স্বাৰর করা হয়েছে। স্মারক অনুযায়ী হুয়াজং কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থায়ন ও সার্বিক সহযোগিতায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়োটেকনোলজি ইন্সটিটিউট চালু করা হবে। গতকাল শুক্রবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাবির জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক অধ্যাপক ড. প্রভাষ কুমার কর্মকার। সংবাদ সম্মেলনের শুর্বতেই অধ্যাপক প্রভাষ কর্মকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ শিৰা, গবেষণা ও তথ্য প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে দ্র্বত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর পর্যায়ে নিয়ে গেছে বর্তমান সরকার। প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় অনুপ্রাণিত হয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিতে বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহানের নেতৃত্বে কাজ করছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাবৃন্দ। এরই অংশ হিসেবে সম্প্রতি উপাচার্যের নেতৃত্বে চীন সফরে যায় রাবির ৫ সদস্যের প্রতিনিধি দল। এ সফর সম্পর্কে জানাতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।
পরে সংবাদ সম্মেলনে চীন সফর বিষয়ে বিস্তারিত জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম. আব্দুস সোবহান। উপাচার্য বলেন, চীনের হুয়াজং বিশ্ববিদ্যালয়ের আমন্ত্রণে গত ৪-৯ সেপ্টেম্বর রাবির ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল চীন সফর যায়। সফরকালে রাবিতে বায়োটেকনোলজি ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা, উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার সুযোগ সৃষ্টি, বায়োলোজি, উদ্যানতত্ত্ব, একুয়াকালচার, পোস্ট হারভেস্ট প্রসেসিং টেকনোলজি ও কৃষি অর্থনীতি বিষয়ে যৌথ গবেষণা, বাংলাদেশের বিভিন্ন খাদ্যশষ্য সংরৰণে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহ, যৌথ উদ্যোগে পরিবেশ ও কৃষি বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করাসহ গুর্বত্বপূর্ণ ৫টি বিষয়ে উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, অধ্যাপক চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক লায়লা আরজুমান বানু, আইবিএসসি-এর সাবেক পরিচালক অধ্যাপক মনজুর হোসেন প্রমূখ।
বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রভাষ কর্মকার জানান, ২০১২ সালে হুয়াজং বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি প্রতিনিধিদল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন। ওই সময় তাদের সঙ্গে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১২ জন পিএইচডি গবেষক প্রেরণের চুক্তি হয়। নতুন করে কয়েকটি চুক্তি হওয়ায় দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিৰার্থীদের গবেষণার সুযোগ বৃদ্ধি পাবে বলে প্রত্যাশা করছে প্রশাসন।
জানা যায়, চীনের উহান পাহাড়ের পাদদেশে তিন দিকে লেক বিশিষ্ট ৪৯৪ হেক্টর জমির উপরে হুয়াজং বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষা এবং গবেষণা কার্যক্রম ১৮টি কলেজে বিভক্ত। একাডেমিক সদস্য সংখ্যা ২ হাজার ৫০০। ৩১২ জন প্রফেসর। এর মধ্যে ৫ জন চাইনিজ একাডেমি অব সায়েন্সের সদস্য।