স্টাফ রিপোর্টার: বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজশাহীতে উন্নয়ন মেলা শুর্ব হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশব্যাপী ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেন। পরে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটন প্রধান অতিথি হিসেবে স্থানীয়ভাবে মেলার উদ্বোধন ও আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন।
এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সর্বদিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তার প্রমাণ আজকে আমরা আবারো পেলাম এই সরকারের সুবিধাভোগী বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের মুখ থেকে। বাংলাদেশ থেমে নেই। উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ উঠে গেছে, এখন দ্র্বত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এটি আমাদের অহংকার, এটি আমাদের গর্ব।
লিটন বলেন, বাংলাদেশের প্রতি টার্গেট করে পুরো ভারতবর্ষ তাকিয়ে আছে। তারা অবাক হয়ে তাকিয়ে দেখছে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে কীভাবে। এই এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ সবদিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তার প্রমাণ আজকে আমরা আবারো পেলাম এই উন্নয়ন মেলা থেকে।
মহানগর আওয়ামী লীগের এই সভাপতি বলেন, কিছুদিন আগে এক অনুষ্ঠানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কাছে পাকিস্তানকে সুইডেনের মতো দেশ বানানোর প্রস্তুাব এসেছিল। সেই অনুষ্ঠানে তিনি বলেছিলেন, সুইডেন বানানোর চিন্তা ছেড়ে দাও, পাকিস্তানকে বাংলাদেশ বানিয়ে দাও। আমরা এখন সব সূচকে পাকিস্তানের চেয়ে অনেক উপরে।
মেয়র লেন, রাজশহীতেও উন্নয়ন হচ্ছে। আগামী কয়েক মাসের মধ্যে রাজশাহীর পদ্মা নদীতে ক্যাপিটাল ড্রেজিং করা হবে। নগরীর তলদেশে ভরাট হয়ে যাওয়া মাটি শহরের পাশে ফেলে ভরাট করা হবে। আমরা প্রায় ১০ থেকে ১৫ বর্গকিলোমিটার জায়গা নতুন করে উদ্ধার করতে পারবো। সেখানে আমরা অনেক স্থাপনা করতে পারবো। বিনোদন কেন্দ্র হবে, ইকো পার্ক হবে।
জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- ভূমি সংরৰণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সালমা আকতার জাহান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক কেএম আব্দুস সালাম, বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আক্তার রেণী, পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক এম খুরশীদ হোসেন, মহানগর পুলিশের কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার, সংরৰিত আসনের সংসদ সদস্য আকতার জাহান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপিকা জিন্নাতুন নেসা তালুকদার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, রাজশাহী কলেজের অধ্যৰ হবিবুর রহমান প্রমুখ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে রাজশাহীর উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেন মেয়র খায়র্বজ্জামান লিটনসহ অন্যান্য অতিথিরা। এর আগে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজশাহীসহ সারাদেশে একযোগে উন্নয়ন মেলা-২০১৮ এর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় নগরীর কুমারপাড়া মোড় থেকে উন্নয়ন মেলা উপলৰে এক বিশাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রায় মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটনসহ অন্যান্য অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন। শোভাযাত্রাটি নগরীর সাহেব বাজার হয়ে রাজশাহী কলেজ মাঠে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, স্কুল-কলেজের শিৰক-শিৰার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশ নেন।
রাজশাহীর ঐতিহ্যবাসী ঘোড়ার টমটম শোভাযাত্রার সৌন্দর্য্য বর্ধণ করে। রাজশাহী কলেজ মাঠে আগামী ৬ অক্টোবর পর্যন্ত এ উন্নয়ন মেলা চলবে। উন্নয়ন মেলা সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের স্টলে দেশের উন্নয়নের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। মেলায় প্রায় দুই শতাধিক স্টল বসেছে।