এলএনজি সরবরাহে জটিলতায় ৰতির মুখে শিল্পোদ্যোক্তারা

11/08/2018 1:04 am0 commentsViews: 3

এফএনএস: একাধিকবার সময় নির্ধারণ করেও এলএনজি সরবরাহ করা সম্ভব হয়নি। এলএনজি সরব-রাহ নিয়ে অপেক্ষার প্রহর যেন শেষই হচ্ছে না। কবে নাগাদ তা সরবরাহ করা সম্ভব হবে তাও নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। এর জের ধরে ৰতির মুখে পড়েছে চট্টগ্রামের শিল্পোদ্যো-ক্তারা। অনেকেই উৎপাদন শুরম্ন করার প্রস’তি নিয়ে গ্যাসের অপেক্ষায় রয়েছে। এলএনজির জন্য আবেদন করা নতুন শিল্পের মধ্যে ভারি, হালকা ও মাঝারি ধরনের শিল্প রয়েছে। তাছাড়া রয়েছে ক্যাপটিভ পাওয়ার ও পুরাতন শিল্পে গ্যাসের লোড বৃদ্ধির আবেদন। ভুক্তভোগী সংশিস্নষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশিস্নষ্ট সূত্র মতে, সরকারিভাবে চট্টগ্রাম ৩টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও একটি সার কারখানা এলএনজির অপেক্ষায় রয়েছে। গ্যাস সংকটে দীর্ঘদিন যাবত রাউজান ও শিকলবাহায় অবসি’ত বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। ওসব বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দৈনিক উৎপাদন ক্ষমতা ৪৮০ মেগাওয়াট। তাছাড়া সিইউএফএল গ্যাস সংকটে বন্ধ রয়েছে। এলএনজি দিয়ে ওসব কারখানা চালু করা হবে বলে সংশিস্নষ্টরা জানিয়েছেন।
সূত্র জানায়, সরকারের উচ্চপর্যায়ে গঠিত কমিটি ইতোমধ্যে চট্টগ্রামে শিল্পের ৬৭৬টি গ্যাস সংযোগের অনুমোদন দিয়েছে। ওসব সংযোগের বিপরীতে গ্যাসের দৈনিক চাহিদা প্রায় ১ হাজার মিলিয়ন ঘনফুট। শিল্পের এলএনজির ২৬৮টি সংযো-গের জন্য গ্রাহকরা ডিমান্ডনোটের টাকাও পরিশোধ করেছে। ওসব গ্রাহকের গ্যাসের দৈনিক চাহিদা ৩৩৪ মিলিয়ন ঘনফুট। তারা নিরা-পত্তা জামানত বাবদ পরিশোধ করেছেন প্রায় ১৭৬ কোটি ৩৪ লাখ ৯২ হাজার টাকা। কিন’ গত এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে ১ লাখ ৩৩ হাজার ঘনমিটার এলএনজিবাহী জাহাজটি মহেশখালীতে সমুন্দ্রে নোঙর করে। কিন’ প্রায় সাড়ে ৩ মাস কেটে গেলেও গ্রিডে এলএনজি যুক্ত হয়নি। সরকারের প্রথম ঘোষণায় গত ১৫ মে থেকে চট্টগ্রামে এলএনজি সরব-রাহ শুরম্ন হওয়ার কথা ছিল। তারপর আরো কয়েক দফায় তারিখ ঘোষণা করা হলেও সরবরাহ নিয়ে এখনো নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না।
সূত্র আরো জানায়, মহেশখালী থেকে চট্টগ্রামের আনোয়ারা পর্যনৱ এল-এনজি সঞ্চালন পাইপ লাইন স’াপনের কাজ অনেক আগেই শেষ হয়েছে। চট্টগ্রামে গ্যাসের রিং মেইন পাইপ লাইনও ইতোমধ্যে পরিষ্কার করা হয়েছে। পাইপ লাইনে কোনো ত্রম্নটি রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিদ্যমান বিতরণ লাইন দিয়ে ৩৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা যায়। তাই ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বিতরণ লাইন নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্পের কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে।
এদিকে শিল্পোদ্যোক্তারা বলছেন, এলএনজি সংযোগের ডিমান্ডনোটের টাকা দীঘদিন আগে পরিশোধ করার পরও গ্যাসের জন্য অনৱহীন অপে-ৰায় থাকতে হচ্ছে। গ্যাস না পাওয়ায় অনেক কারখানাই ডিজেল দিয়ে চালানো হচ্ছে। তাতে উৎপাদন খরচ অনেক বেশি হচ্ছে।
অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম মেট্টো-পলিটন চেম্বারের ভাইস-চেয়ারম্যান মাহাবুব চৌধুরী জানান, উৎপাদনে যাওয়ার জন্য অনেকেই প্রস’তি নিয়ে বসে আছে। গ্যাস সরবরাহ বিলম্বে তারা ক্ষতিগ্রসৱ হচ্ছেন।

Leave a Reply