মুখ ঢাকায় ডেনমার্কে প্রথম নারীর জরিমানা

05/08/2018 1:04 am0 commentsViews: 18

এফএনএস আনৱর্জাতিক ডেস্ক : চলতি বছরের মে মাসের শেষের দিকে ডেনমার্কে প্রকাশ্যে বোরকাসহ মুখ ঢাকা যায় এমন ধরনের পোশাক নিষিদ্ধ করে পাস করা আইনটি গত বুধবার থেকে কার্যকর হয়। এর প্রতিবাদে সেখানে জোরালো আন্দো-লন চলছে। নতুন কার্যকর হওয়া হিজাব নিষিদ্ধ আইনের জোরালো বিক্ষোভের মধ্যেই প্রথম নারীকে জরিমানা করেছে ডেনমার্কের পুলিশ। ২৮ বছর বয়সী ওই নারীকে মুখ ঢাকার জন্য জরিমানা করা হয়। স’ানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, গত শুক্রবার হোরসোলম শহরের একটি বিপনি বিতানে তাকে জরিমানা করা হয়। এর মধ্যে কেনাকাটা করার সময় মুখ ঢাকা ওই নারীর বোরখা টেনে ছিঁড়ে ফেলার চেষ্টা করে অপর এক নারী। ফলে তাদের মধ্যে ছোটখাট ঝগড়া তৈরি হয়। ডেনমার্কের বার্তা সংস’া রিটজাওকে পুলিশ কর্মকর্তা ডেভিড বরচারসেন বলেছেন, ঝগড়ার সময়ে তার নেকাব খুলে পড়ে গেলে আমরা এগিয়ে গিয়ে তা আবারও তাকে ফিরিয়ে দেই। পুরো মুখ ঢাকার জন্য ওই নারীকে আইন অনুযায়ী প্রকাশ্যে মুখ ঢাকায় ১৫৬ মার্কিন ডলার জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া তাকে হয় ওই পোশাক খুলে ফেলতে বা বিপনি বিতান ছাড়তে বলা হয়। পরে তিনি বেরিয়ে চলে যান। ডেনমার্কে পাস হওয়া নতুন আইনে প্রথমবার প্রকাশ্যে মুখ ঢেকে জরিমানা হলে ১৫৬ মার্কিন ডলার জরিমানা এবং পরবর্তীতে একই ঘটনা আবারও ঘটলে তাকে ১ হাজার ৫৬০ মার্কিন ডলার জরিমানা করার বিধান রাখা হয়েছে। গত বুধবার থেকে এই কার্যকরের প্রতিবাদে রাজধানী কোপেনহেগেনের রাসৱায় বিক্ষোভ দেখায় শত শত নারী। সরকারের দাবি, বিশেষ কোনো ধর্মের প্রতি বিদ্বেষপ্রসুত হয়ে এই আইন পাস করা হয়নি। তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলো এ নিষেধাজ্ঞাকে নারীর অধিকার লঙ্ঘন বলে উলেস্নখ করেছে। বিতর্কিত এই আইনের বিরোধিতা করছে ‘পার্টি রিবেলস’ নামে একটি অ্যাক্টিভিস্ট গ্রম্নপ। গ্রম্নপেরই একজন সক্রিয় কর্মী সাশা অ্যান্ডারসন একটি ধর্মীয় সংখ্যালঘু সমপ্রদায়ের ওপর বৈষম্যমূলক আইন চাপিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে গত বুধবার বিক্ষোভের ডাক দেন। গত বৃহস্পতিবার দেশ-টির রাজধানী কোপেনহেগেনেও শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছেন। প্রসঙ্গত, গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ইউরোপীয় দেশগুলোতে নিকাব নিষিদ্ধ করার বিষয়টি বিপুল তর্কবিতর্কের জন্ম দিয়েছে। ডেন-মার্কের আগে ফ্রান্স, বেলজিয়াম, অস্ট্রিয়া ও জার্মানিতে নিকাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

Leave a Reply