সিটি নির্বাচনে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জর্বরি

19/07/2018 1:04 am0 commentsViews: 11

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচনের দিন ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার শাহাদত হোসেন চৌধুরী । তিনি সিটি নির্বাচন উপলৰে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক এক সভায় রাজশাহীতে একথা বলেছেন। সেখানে সিটি নির্বাচন ঘিরে সন্ত্রাসীদের ভূমিকার কথা উলেৱখ করে রাজশাহীতে কোন ধরনের শঙ্কা নেই বলেও জানান তিনি। তার কথাকে চ্যালেঞ্জ জানাতেই কি একই দিনে নগরীতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়?
সাগরপাড়া বটতলায় ধানের শীষের পৰে প্রচারণা সমাবেশে ককটেল বিস্ফোরণে সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন আহত হবার ঘটনায় উদ্বেগ সৃষ্টি হওয়াই স্বাভাবিক। তিনটি মোটরসাইকেলে মুখ ঢাকা দুর্বৃত্তরাই ককটেল ছুঁড়ে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনি পরিবেশকে অশান্ত করার অপচেষ্টা চালিয়েছে এতে সন্দেহ নেই। ঘটনার পর পরই পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসার এবং তদন্ত শুর্ব করার কথা জানা গেছে। এই সমাবেশের কথা আগে থেকে আইন-শৃঙ্খলা রৰাকারী সংস্থাকে না জানানোর বিষয়টা অবশ্যই খতিয়ে দেখা দরকার।
প্রকাশ্য দিবালোকে মোটর সাইকেলে এসে ককটেল ছুঁড়ে পালিয়ে যাবার ঘটনা সিটি নির্বাচনে কিছুটা হলেও উত্তাপ ছড়িয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের প্রচারণাকালে নিরাপত্তার বিষয়টি অবহেলার নয় মোটেই। এ ৰেত্রে সংশিৱষ্ট সবারই দায়িত্বশীল ভূমিকা বাঞ্ছনীয়। ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনার পর এ ধরনের অনুষ্ঠানে কোনো সন্ত্রাসী বা বিতর্কিত ব্যক্তি থাকছে কি না সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করা যায় না। নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সদা সতর্কতাই যে আসন্ন রাসিক নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে পারে, সেটা না বললেও চলে।
ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার পাশাপাশি এই সতর্কতার অপরিহার্যতা এখন আরও জোরালো হয়ে উঠেছে। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সংবাদকর্মীর আহত হবার ঘটনা সংশিৱষ্ট সবার জন্যই দৃষ্টি আকর্ষণকারী বলা যায়। ভোটের দিনে ভোটারদের নিরাপত্তার মতই সংশিৱষ্ট সবার সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করাও জর্বরি। যে কোনো মূল্যে সিটি নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশই সবার কাম্য।

Leave a Reply