চিকিৎসকের ধর্মঘট অন্যায় ছাড়া আর কি ?

11/07/2018 1:04 am0 commentsViews: 4

চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসদের ডাকা ধর্মঘট নিয়ে অসনেৱাষ প্রকাশ করেছেন উচ্চআদালত। আদালতের ভাষায়, চিকিৎসা একটি মহান পেশা। কিন’ কতিপয় ব্যক্তির কারণে এর সুনাম নষ্ট হচ্ছে। চিকিৎসা পেশায় দুর্বৃত্তরা প্রবেশ করছে। নিজেদের ভুল ঢাকতে ধর্মঘট ডাকা হচ্ছে, যা আরও বড় অন্যায়। চিকিৎসকদের অবহেলা থাকলে তাদের শাসিৱ হওয়া উচিত বলেও মনৱব্য করেছেন আদালত।
ভুল চিকিৎসা নিয়ে করা রিট আবেদনের শুনানিতে চট্টগ্রামে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে চিকিৎসা সেবা বন্ধ রাখার প্রসঙ্গ ধরে উচ্চআদালতের এমন মনৱব্য যুগানৱকারী বলতে হবে। আদালতের বক্তব্যে কঠিন সত্য উঠে এসেছে। চিকিৎসকরা দেবতা নন। তাদেরও ভুল হওয়া স্বাভাবিক। কিন’ ভুলটা জাস্টিফায়েড করার জন্য ধর্মঘট ডেকে সেবা কার্যক্রম অচল করে দেওয়া যে কত বড় অন্যায় সেটা বলার নয়।
চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে শিশুর মৃত্যু যে সংশিস্নষ্টদের অবহেলার কারণে সেটা একাধিক তদনেৱ প্রমাণিত হয়েছে। খোদ স্বাস’্যমন্ত্রী দায়ীদের বিরম্নদ্ধে ব্যবস’া নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এর মধ্যেই র‌্যাবের অভিযানে অনিয়মের প্রমাণ পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত জরিমানা করায় সেখানকার সব বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে ধর্মঘট ডেকে রোগীদের জিম্মি করা হয়। ২০ ঘণ্টা পর ধর্মঘট প্রত্যাহারের পেছনে উচ্চ আদালতের ভূমিকা রয়েছে মনে করার যথেষ্ট কারণ আছে।
শুধু বেসরকারি নয়, সরকারি হাসপাতালেও মাঝে মধ্যেই ধর্মঘট ডেকে রোগীদের জিম্মি করে দাবি আদায়ের অপচেষ্টা দেখা যায়। চিকিৎসায় অবহেলা বা ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুকে কেন্দ্র করে রোগীর ৰুব্ধ স্বজনদের প্রতিবাদ, ভাংচুরের মুখেই চিকিৎসকদের এমন পদৰেপ নিতে দেখা যায়। কিন’ এর ফলে যে অসংখ্য রোগীর দুর্ভোগ ডেকে আনা হয় সেটা ভেবে দেখা হয় না। তাছাড়া এরকম পদৰেপ সেবামূলক এই পেশার মর্যাদাও যে ধুলায় লুটিয়ে দেয়, সেটা অস্বীকার করা যাবে না। আমাদের হাসপাতালগুলিতে ব্যবস’াপনা সুষ্ঠু হলে নিশ্চয়ই এমনটা দেখা যেত না।
সরকারি হাসপাতালে যেমন অব্যবস’াপনা, দুর্নীতি, চুরি, দলবাজি রয়েছে তেমনি বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে রোগীদের পকেট কাটার প্রতিযোগিতা খালি চোখেই দেখা যায়। সেখানে সেবার নামে চলে রমরমা বাণিজ্য। সুষ্ঠু ব্যবস’াপনা ও নিয়মিত তদারকির ব্যবস’া ছাড়া এই অবস’ার অবসান আশা করা যায় না। উচ্চ আদালতের হসৱৰেপের পর এখন সংশিস্নষ্টদের টনক নড়বে, এটাই সবার কাম্য।

Leave a Reply