৫০ লাখ টাকায় সংস্কার কাজের উদ্বোধন/ অবশেষে পাকাপোক্ত হচ্ছে মান্দার সেই বালির বাঁধ

08/07/2018 1:04 am0 commentsViews: 14

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর মান্দা উপজেলার বহুল আলোচিত সুজনসখী খেয়াঘাট সংলগ্ন এলাকায় সেই বালির বাঁধে সংস্কার কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। এ কাজে সবশেষ ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ লাখ টাকা। শনিবার বিকেলে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে এ কাজের উদ্বোধন করেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী ইমাজ উদ্দিন প্রামানিক এমপি। বালির সেই বাঁধে নতুন করে কাজ শুরু হওয়ায় এলাকাবাসীর মনে স্বসিৱ ফিরে এসেছে।
উদ্বোধনের সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার মুশফিকুর রহমান, নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুধাংশু কুমার সরকার, এসডিই মোখলেছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মোলস্না এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক সরদার জসিম উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যৰ জহুরুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক অনুপ কুমার মহনৱ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মকবুল হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নওসাদ আলী, স’ানীয় গণমাধ্যম কর্মি, নির্মাণ কাজের ঠিকাদার সাজেদুল আলম লাল্টুসহ এলাকাবাসি উপসি’ত ছিলেন।
নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুধাংশু কুমার সরকার জানান, সংস্কার কাজে বাঁধের কান্ট্রি সাইডে সেস্নাপ ডেভেলপমেন্ট ও মাটির ওপর ঘাস লাগানো হবে। অন্যদিকে রিভার সাইডে জিও টেক্সটাইল ফিল্টার বিছিয়ে মাটি দিয়ে ভরাট দেয়া হবে। নদীর কিনার ঘেঁসে জিও ব্যাগে বালি ভর্তি করে ভাঙন স’ানের তিনটি পয়েন্টে নির্মাণ করা হবে ডুবনৱ স্পার। এ কাজে ৫০ লাখ টাকা ব্যয় হবে বলে তিনি উলেস্নখ করেন।
উলেস্নখ্য, গত বছরের ১৩ আগস্ট আত্রাই নদীর ডান তীরের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সুজনসখী এলাকায় ভেঙে নুরম্নলস্নাবাদ, প্রসাদপুর, কুসুম্বা, কালিকাপুর, তেঁতুলিয়া, বিষ্ণুপুরসহ বাগমারা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন পস্নাবিত হয়। এসব ইউনিয়নের লৰাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয় হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল। ভেসে যায় অসংখ্য পুকুরের মাছ। বন্যা পরবর্তী সময়ে নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙন স’ান মেরামত করে শুধুমাত্র বালু দিয়ে। হঠাৎ একদিনের বৃষ্টিতে সেই বালির বাঁধ ধসে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে দৈনিক সোনালী সংবাদসহ বিভিন্ন দৈনিকে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। উর্ধ্বতন কর্তৃপৰ একাধিকবার পরিদর্শন করেন আলোচিত বাঁধটি। অবশেষে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী ইমাজ উদ্দিন প্রামানিকের ঐকানিৱক প্রচেষ্টায় বালির বাঁধটি চলতি বর্ষা মওসুমে টিকিয়ে রাখতে সংস্কার কাজ শুরু করা হল। বাঁধটি রাতে আলোকিত করে রাখার জন্য মনৱ্রীর নির্দেশে শনিবার সেখানে তিনটি সোলার স্ট্রিটলাইট স’াপন করা হয়েছে। এতে স’ানীয়দের মাঝে স্বসিৱ ফিরে এসেছে।

Leave a Reply