তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে গলা কেটে স্বামী পরিত্যক্ত এক নারীকে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর জিতপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঘরের বারান্দায় গলা কাটা মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে প্রতিবেশিরা থানায় খবর দেন।
নিহত নারীর নাম জহুরা খাতুন (৪২)। তার স্বামীর নাম তৌহিদ আলী। জহুরার মরদেহের পাশে তার পূত্রবধূ র্বমি খাতুন (২৫) অচেতন অবস্থায় পড়ে ছিলেন। তারও হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। এছাড়া লাঠির আঘাত আছে মাথায়।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুল মতিন এসব তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, পুলিশ র্বমি খাতুনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেৱঙ এবং পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেছে।
চেয়ারম্যান জানান, জহুরার ছেলে একজন ব্যাংক কর্মচারি। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জে থাকেন। আর বাড়িতে পূত্রবধূ এবং এক নাতিকে নিয়ে থাকতেন জহুরা। বুধবার রাতে প্রতিবেশিরা জহুরার গলাকাটা মরদেহ এবং র্বমিকে রক্তাক্ত ও অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। পরে পুলিশে খবর দেওয়া হয়।
রাত সাড়ে ১০টার দিকে তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম জানান, তারা মরদেহটির সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করছেন। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি রামেকের মর্গে পাঠানো হবে।
ওসি জানান, কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। কাউকে আটকও করা হয়নি। তবে এ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।