পাল্টাপাল্টি মামলায় ধানকাটা বন্ধ

25/05/2018 1:04 am0 commentsViews: 11

রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় গভীর নলকূপের ভাড়া আদায়কে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে দায়ের করা পাল্টাপাল্টি মামলায় গভীর সংকট সৃষ্টি হয়েছে। মামলার আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযানের ফলে গ্রাম পুর্বষ শূন্য হওয়ায় ধান কাটা বন্ধ হয়ে গেছে। মাঠে কাটা ধানও ঘরে তুলতে না পেরে চরম দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে কৃষকদের। বিষয়টির দ্র্বত মিমাংসায় তারা স’ানীয় প্রশাসনের হস্তৰেপ কামনা করেছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে দৈনিক সোনালী সংবাদে।
উলেৱখিত গভীর নলকূপের আওতায় প্রায় ১২০ বিঘা জমির পাকা ধান কাটা শুর্ব হলেও সংঘর্ষ ও নলকূপ অপারেটরের বাধার কারণে বন্ধ হয়ে গেছে। সেচের খরচ বাবদ বিঘা প্রতি ১ হাজার ৬৫০ টাকা অতিরিক্ত অভিযোগ তুলে তা পরিশোধে আপত্তি জানায় কৃষকরা। এ নিয়ে সংঘর্ষে নারী, পুর্বষসহ কমপৰে ১৫ জন আহত হওয়ায় থানায় উভয় পৰের পাল্টাপাল্টি মামলার আসামি ৩৫ জনই কৃষক ও দিনমজুর। পুলিশি অভিযানের মুখে গ্রেফতার এড়াতে তারা পলাতক থাকায় ধান কাটতে না পেরে এখন বিষয়টি মিমাংসায় উপজেলা প্রশাসনের দিকেই তাকিয়ে আছেন গ্রামবাসী।
গ্রামীণ সমাজে এমন অবস’া দীর্ঘায়িত হলে জটিলতা গভীর হয়ে উঠবে সন্দেহ নেই। তাই জমির ধান রৰার পাশাপাশি শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থেই বিষয়টির মিমাংসায় সবারই এগিয়ে আসা জর্বরি। উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ ও স’ানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে উভয়পৰের আলোচনা থেকে সন্তোষজনক সমাধান বেরিয়ে আসবে, জোর দিয়েই বলা যায়।
পাকা ধান মাঠে ফেলে রাখলে কৃষকের যে ৰতি তা পুষিয়ে নেয়া কতটা কঠিন হবে সেটা বলার অপেৰা রাখে না। গভীর নলকূপের সেচের খরচ নিয়ে এ ধরনের বিরোধ এড়াতে একটা গ্রহণযোগ্য ব্যবস’া চালু করা অসম্ভব নয় মোটেই। বিষয়টি নিয়ে সংশিৱষ্ট সব পৰের সক্রিয় ভূমিকা আশা করা নিশ্চয়ই অসঙ্গত হবে না।

Leave a Reply