খাদ্য সঙকটে অবরুদ্ধ দেড় শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারি পরিবার

18/05/2018 1:07 am0 commentsViews: 18

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) থেকে এম এ জলিল সরকার: পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে ৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়া কর্মকর্তা-কর্মচারিদের পরিবারে শিশু খাদ্য, ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের তীব্র সঙকট দেখা দিয়েছে। দ্র্বত পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে খনির ভিতরে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙকা দেখা দিয়েছে।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেছেন বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমদ।
খনির অফিসার ক্লাব মনমেলা’র কনফারেন্স রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে হাবিব উদ্দিন আহমদ বলেন, বিদেশি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এঙএমসি’র অধিনে কর্মরত শ্রমিকদের বেতন প্রায় ৩ গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। ১ জন খনিশ্রমিক আগে যেখানে সর্বনিম্ন ৮ হাজার ৮ শ ৮০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১৪ হাজার ৬ শ ৪০ টাকা মাসিক বেতন পেতেন, সেখানে এখন পাচ্ছেন যথাক্রমে ২৩ হাজার ৫৫ টাকা এবং ৪১ হাজার ২৭৬ টাকা। পাশাপাশি সাপ্তাহিক ছুটিসহ বছরে ৭৮ দিন ছুটি পাচ্ছেন। সেই সাথে শিফট অ্যালাউন্স, পরিবেশ অ্যালাউন্স, উৎপাদন ভাতা, ইন্সটলেশন ও স্যালভেজ বোনাস, দুটি উৎসব ভাতা এবং অধিকাল ভাতা পান। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এঙএমসি শ্রমিকদের দাবিগুলো অযৌক্তিক বলে মানতে নারাজ বলে তিনি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন খনির মহাব্যবস্থাপক (পৱানিং অ্যান্ড এঙপেৱারেশন) এ বি এম কামরুজ্জামান, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) ও কোম্পানি সচিব আবুল কাশেম প্রধানীয়া, মহাব্যবস্থাপক (মাইন অপারেশন) নূরুজ্জামান চৌধুরী, মহাব্যবস্থাপক (সারফেজ অপারেশন) সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।
উলেৱখ্য, ১৩ দফা দাবি আদায়ের লৰে রোববার সকাল থেকে খনি গেটের সামনে অবস্থান নিয়ে খনি শ্রমিকরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন করে আসছে। শ্রমিকরা খনির ভিতরে কাউকে প্রবেশ ও বের হতে না দেয়ায় সেখানে প্রায় দেড় শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারি পরিবার ৫ দিন ধরে কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে রয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে দিনাজপুর ও ফুলবাড়ীতে বসবাসকারী খনির কয়েকজন কর্মকর্তা খনিতে প্রবেশ করতে গেলে ধর্মঘটী শ্রমিকরা বাধা দেয়। এতে করে উভয়পৰের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে খনির ৯ কর্মকর্তা, ৪ শ্রমিক, ১ পুলিশসহ ১৫ জন আহত হন। এর আগের দিন সোমবার শ্রমিকদের হামলায় এক খনি কর্মচারি আহত হন। এ দুটি ঘটনায় খনির ব্যবস্থাপক (নিরাপত্তা) সৈয়দ ইমাম হাসান বাদি হয়ে ১১০ জনকে আসামি করে বুধবার পার্বতীপুর মডেল থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন।

Leave a Reply