কিলিং মিশনের ৯ জনের মধ্যে ৩ জনকে গ্রেপ্তার

15/05/2018 1:06 am0 commentsViews: 25

বগুড়া প্রতিনিধি: অবশেষে ঘটনার প্রায় ৯দিন পর বগুড়ার শিবগঞ্জে লোমহর্ষক ফোর মার্ডার ঘটনা রহস্য উদঘাটন হচ্ছে বলে দাবি করল জেলা পুলিশ। কিলিং মিশনে জড়িতদের মধ্য ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে পুলিশের দাবির পরও হত্যাকা-ের মোটিভ সম্পর্কে এখনও পরিস্কার কোন ধারণা পাওয়া যায়নি। সোমবার জেলা পুলিশ সদরে অনুষ্ঠিত এক প্রেস ব্রিফিং ও অবহিত সভায় সাংবাদিকদের কাছে এ দাবি করেছেন পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঁঞা বিপিএম ।
গ্রেপ্তারকৃতরা হল, শিবগঞ্জের ডাবইর গ্রামের রফিকুল শেখের পুত্র জুয়েল শেখ (২৫), মৃত বক্করের পুত্র রুবেল (৪৮) ও চন্দনপুর তালুকদারপাড়ার আব্দুস সামাদের পুত্র আবুল কালাম আজাদ (৪৮)। আগের ২৪ ঘণ্টায় পৃথক অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এদের মধ্য আটক জুয়েল শেখ এবং পলাতক অন্যজন তারা জবাই করেছে বলে সাংবাদিকেদের জানানো হয়। এলাকার মাদকের আধিপত্য কিংবা এলাকার জুয়ার ভাগবাটোয়ারা হত্যাকা-ের সাথে কোন সংশিৱষ্টতা থাকতে পারে কিনা সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও তিনি জানান ।
অবহিতকরণ অনুষ্ঠানে এসপি দাবি করেন, চিহ্নিত করা হয়েছে অন্য অপরাধীদের পরিচয়। মাত্র ৬ হাজার পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে এই ফোর মার্ডারের ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান । এসময় তিনি উলেৱখ করেন, সেন্ট্রাল পুলিশ ইন্টালিজেরন্স’র সহায়তায় জেলা পুলিশের যৌথ পরিচালনা ঘটনার প্রায় ২/৩দিন আগে এই হত্যা পরিকল্পনা করা হয়েছিল। ওই ফোর মার্ডার কিলিং মিশনে অংশ নিয়েছির সর্বমোট অংশ নিয়েছিল ৯ জন। তাদের মধ্য ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
পুলিশ সুপার উলেৱখ করেন, এৰেত্রে টাকা পাওনা ও পূর্ব শত্রতার জের ধরে জাকারিয়া নামের এক জনকে হত্যার পরিকল্পনা করা হলেও এ ঘটনায় অন্য ৩ জন এ ঘটনায় শিকার হয়েছেন। অর্থাৎ একজনকে হত্যার পরিকল্পনা করা হলেও হত্যাকা-ের শিকার হয়েছেন আরো ৩ জন। হত্যাকা-ের রাতে মাদক খাওয়ার কথা বলে জাকারিয়াকে বাড়ি থেকে রুবেলের বাড়ি যেতে বলা হয়। এ সময় সাবুল নামের অপর এক বন্ধু যায় তার সাথে। পরিকল্পনা মত প্রথমে তাদের দু জনকে জবাই করে হত্যা করা হয়। পুলিশ সুপার জানান, ওই সময় জয়পুরহাট পুনট বাজার এলাকার আজার আলীর ছেলে হেলাল উদ্দিন এবং একই এলাকার নান্দাইলদিঘি গ্রামের ছামছুদ্দিন ম-লের পুত্র খবির উদ্দিন ম-লকে বিষয়টি জেনে যাবার কারণে একইভাবে হাত-পা বেঁধে জবাই করা হয়। এ সময় তারা দু জন ওই এলাকা দিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিলেন বলে সাংবাদিকদের জানান তিনি। ওই হত্যাকা-ের ঘটনার এর পূর্বে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নারী পুরুষসহ মোট ৬ জনকে আটক করে পুলিশ ।
এদিকে পরে সোমবার বিকেলে বগুড়া পুলিশ সুপার আটক কিলার জুয়েল শেখকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। তিনি এসময় জুয়েলের দেখিয়ে দেয়া হত্যাকা-ের স্থান পরিদর্শন করেন।
উলেৱ্লখ্য, গত ৭ মে সোমবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের ডাবুইর গ্রামের ধানখেতে বহুল আলোচিত ৪ ব্যক্তির হাত-পা বাঁধা গলা কাটা লাশ স্থানীয় এলাকাবাসী দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। হত্যাক-ের শিকার হলেন এলাকার ভাইয়ের পুকুর বাজারের পানবিক্রেতা ও কাঠগাড়া গ্রামের আছির উদ্দিনের ছেলে সাবরুল (৩৫) একই গ্রামের রং মিস্ত্রী জহুরুল ইসলামের ছেলে জাকারিয়া (৩২), জয়পুরহাট জেলার পুনট বাজার এলাকার আজার আলীর ছেলে হেলাল উদ্দিন (৩৫)। জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার নান্দাইলদিঘি গ্রামের ছামছুদ্দিন ম-লের পুত্র খবির উদ্দিন ম-ল (৩০)।

Leave a Reply