সোনালী ডেস্ক: সৃষ্টির শুর্ব থেকে চিকিৎসা সেবাকে ব্রত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। চিকিৎসা সেবার মাধ্যমে সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টিকে কাছ থেকে সেবা করা যায়। প্রতি বছর আমাদের দেশের কয়েক হাজার শিৰার্থী চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে নামে ভর্তি যুদ্ধে। ২০১৮-১৯ শিৰাবর্ষের ভর্তি পরীৰা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৫ অক্টোবর। ডেন্টাল ভর্তি পরীৰা হবে ৯ নভেম্বর। দেশের সব প্রান্ত থেকে শিৰার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করেছে। ২৭ আগস্ট থেকে এই আবেদন প্রক্রিয়া শুর্ব হয় এবং শেষ হয় ১৮ সেপ্টেম্বর।
বর্তমানে শিৰার্থীরা নিচ্ছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। ভর্তি পরীৰায় পাশ নম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০। আসন্ন পরীৰাকে কেন্দ্র করে কুচক্রী মহলের তৎপরতা বেড়ে গেছে। তাদের উদ্দেশ্য- মেডিকেলের মতো গুর্বত্বপূর্ণ ভর্তি পরীৰায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে সরকারের বির্বদ্ধে বিরূপ মনোভাব সৃষ্টি করা।
সামনেই জাতীয় নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সরকারের বির্বদ্ধে গুজব ছড়ানোই তাদের মুখ্য উদ্দেশ্য। প্রশ্ন ফাঁসের গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে তারা যাতে বলতে পারে এই সরকারের অধীনে গুর্বত্বপূর্ণ ভর্তি পরীৰার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় এবং জনগণ যাতে বিভ্রান্ত হয়।
সরকারের বির্বদ্ধে এই ধরণের গুজব ও মিথ্যাচার দমন করার জন্য তৎপর রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। তারা বলছেন, এই ধরণের কোনো রকম মিথ্যাচার, গুজবে যাতে কান দেয়া না হয়। শিৰার্থীদের তাদের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। পরীৰার আগে কোনোভাবে যাতে প্রশ্নপত্র ফাঁস না হয় এবং গুজব ছড়ানোকারীদের আইনের আওতায় আনা হয় সেই দিকে সচেষ্ট রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। প্রতিবারের মতো এইবারও পরীৰা কেন্দ্রগুলোতে থাকবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা, যাতে কোনরকম অনাকাঙ্খিত ঘটনা না ঘটে। সেই সাথে নজর থাকবে সরকার বিরোধী গুজব রটনাকারীদের, যারা নির্বাচনের আগে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চায়।