এমন প্রণোদনা চাষিদের উৎসাহিত করবে

19/04/2018 1:04 am0 commentsViews: 13

এদেশের গরিব চাষিরা নানা সমস্যায় জর্জরিত। এর মধ্যে পুঁজি বা নগদ অর্থের সমস্যা অন্যতম। কৃষি উপকরণ কিনতে গিয়ে চাষি ঋণগ্রসৱ হয়। ফসল মার গেলে বা বাজারে ভালো দাম না পেলে তাদের বিপদের শেষ থাকে না। এৰেত্রে সরকারের বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ পেয়ে পরিসি’তি যে কিছুটা সহনীয় হবে এতে সন্দেহ নেই।
সম্প্রতি আউশ ধানচাষে সরকারের প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় রাজশাহীর ১২ হাজার চাষিকে বিনামূল্যে উপকরণ দেওয়ার খবর ছাপা হয়েছে। এর মধ্যে ১০ হাজার জনকে উফশী আউশ চাষে এবং ২ হাজার ১৫০ জনকে নেরিকা আউশ চাষে সর্বমোট ২ কোটি ৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকার কৃষি উপকরণ দেওয়া হচ্ছে। প্রত্যেককে প্রতি বিঘা জমির জন্য ৫ কেজি বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি টিএসপি, ১০ কেজি এমওপি এবং সেচ সহায়তা বাবদ ৫০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। নেরিকা ধানের আগাছা দমনে অতিরিক্ত ৫০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে বলেও রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।
ৰুদ্র ও প্রানিৱক চাষিদের জন্য এমন প্রণোদনার নিশ্চয়তা তাদের দুঃখ-দুর্দশা লাঘবে যথেষ্ট সহায়ক হবে, না বললেও চলে। ধান ছাড়াও অন্যান্য ফসলের ৰেত্রেও এ ধরনের সহায়তা খুবই গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এমন সহায়তার আওতা যত বাড়বে ফসল উৎপাদন ও চাষির উন্নয়ন ততই দৃশ্যমান হয়ে উঠবে এটা নিশ্চিত। এভাবে তৃণমূলের মানুষকেও দেশের চলমান উন্নয়ন ধারার সঙ্গে বেশি করে যুক্ত করা সম্ভব হবে।
এজন্য অবশ্য বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ দেওয়ার পাশাপাশি কৃষি পণ্যের ন্যায্যমূলের নিশ্চয়তা বিধান করাও জরম্নরি। বাজারে অসম বিনিময়েই চাষিরা মার খায়। সে যা কিনে তার দাম বেশি হলেও ফসলের দাম তুলনামূলক কম থাকায় বঞ্চিত হয় চাষি। চাষির এ দুঃখ করে দূর হবে তা জানে না কেউ।
বর্তমান সরকারের কৃষিবান্ধব ভূমিকা অব্যাহত থাকলে কৃষির যেমন উন্নতি হবে, তেমনি গরিব চাষিদের উন্নয়নও ত্বরান্বিত হবে। এতে করে চাষবাসে তাদের উৎসাহ বাড়বে, সন্দেহ নেই। চাষিদের জন্য এমন প্রণোদনার স’ায়িত্বই সবার কাম্য।

Leave a Reply