নববর্ষে এগিয়ে চলার প্রত্যয়ে জেগে উঠুক বাঙালি

14/04/2018 1:04 am0 commentsViews: 11

আজ পয়লা বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। সবাইকে শুভ নববর্ষ। বাঙালির সর্বজনীন উৎসবে মেতে ওঠার দিন আজ। নববর্ষকে আমরা বরণ করে নেই প্রাণের স্পন্দনে, নানা আনুষ্ঠানিকতায়, গানে-কবিতায়, মিছিল-সমাবেশে, আবেগে-উচ্ছ্বাসে। পয়লা বৈশাখ বাঙালি ঐতিহ্যের অনুষঙ্গ হয়ে আছে অনাদিকাল থেকে। বাঙালির জাতীয় ঐতিহ্যকে সতেজ-সজীব করে রেখেছে পয়লা বৈশাখ।
প্রতি বছর ধর্ম-বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ আজকের এই দিনে ভেদাভেদ ভুলে মেতে ওঠে মিলনোৎসবে। নতুন বছরের সূর্যোদয়ের সাথে তাল মিলিয়ে আনন্দ-উৎসবে পথে বেরিয়ে পড়ে ছোট-বড় সব বয়সের বাঙালি। পয়লা বৈশাখ এখন পরিণত হয়েছে বাঙালির জাতীয় উৎসবে, প্রাণের উৎসবে। রূপানৱরিত হয়েছে আমাদের জাতি সত্তার শেকড় খোঁজার আয়োজনে।
নববর্ষ চিরায়ত বাংলার ঐতিহ্যে লালিত অনন্য এক দিন। দিনটি সকলকে প্রবলভাবে আপস্নুত করে। জীর্ণ পুরাতনকে ঝেড়ে ফেলে এগিয়ে চলার প্রেরণা জোগায়। দেশজুড়ে চৈত্রসংক্রানিৱ উৎসব আর বৈশাখী মেলা উদযাপন দেশীয় সংস্কৃতি চর্চা ও বিকাশে অনবদ্য ভূমিকা রাখে। দুনিয়াজুড়ে ছড়িয়ে থাকা প্রবাসী বাঙালিও নববর্ষের উৎসবে মেতে ওঠে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায়। সব বিভেদ ভুলে বাঙালি জাতির পরিচয়ে সবাই মিলিত হয় একই মোহনায়। এদিন আমরা উৎসের পরিচয় খুঁজে পাই। অঙ্গীকার করি তা রৰার। চিনে নেই নিজেকে। নিজের পরিচয়কে। তাই, বলা যায়, বাঙালির আত্মপরিচয়ের দিন আজ।
আবহমান বাংলার গ্রামগঞ্জের মানুষ চৈত্রসংক্রানিৱ ও বৈশাখী মেলার মাধ্যমে নববর্ষ পালন করে আসছিলেন বহুকাল ধরেই। কিন’ নাগরিক সমাজে এর উপসি’তি ৰীণ থেকে ৰীণতর হয়ে আসতে শুরম্ন করেছিল। আধুনিকতার জোয়ারে শেকড়ের খবর রাখার ফুরসৎ কমে গিয়েছিল নগর জীবনে। আনুষ্ঠানিকতায় বাঁধা পড়েছিল নববর্ষ। কিন’ সে অবস’া এখন পাল্টে গেছে।
নববর্ষের অনুষ্ঠান এখন শহর-গ্রাম সর্বত্রই উৎসব-আয়োজনে টেনে আনে সবাইকে। বাঙালির চিরনৱন অসাম্প্রদায়িক চেতনার স্বত:স্ফূর্ত প্রকাশ ঘটায় সর্বত্র। মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরম্নদ্ধে পয়লা বৈশাখ বাঙালি মূল্যবোধ ও জাতীয়তাবোধ সুদৃঢ় করে, ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে চলার দিশা তুলে ধরে।
বাঙালি নববর্ষকে ধারণ করেছে অসাম্প্রদায়িক জীবনযাত্রা ও সংস্কৃতির অনুসঙ্গ হিসেবেই। তাই অতীতের সব ব্যর্থতা, গস্নানি, বিভেদ ভুলে এই দিন জাতীয় জীবনের সর্বৰেত্রে ঐক্য আরো দৃঢ় করবে। এগিয়ে চলার প্রেরণা জোগাবে। বয়ে আনবে অনাবিল আনন্দের বারতা-এমন প্রত্যাশা সকলেরই। তাই আসুন, সমস্বরে গেয়ে উঠি, ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো…..। ১৪২৫ সবার জন্য সফলতা বয়ে আনুক । সবাইকে আবারও শুভ নববর্ষ।

Leave a Reply