ওষুধের দাম অস্বাভাবিক কেন?

11/04/2018 1:04 am0 commentsViews: 19

জীবন রৰাকারী ওষুধের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেছে। অনেক ৰেত্রেই সাধারণ মানুষের ক্রয়ৰমতার বাইরে চলে গেছে। ওষুধ প্রশাসনের নজরদারির অভাবে বাজারে ওষুধ সিন্ডিকেটের সক্রিয় হয়ে ওঠার অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।
ওষুধের দাম বৃদ্ধির ফলে চিকিৎসা ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় সংশিৱষ্ট পরিবারে নাভিশ্বাস ওঠাই স্বাভাবিক। ফলস্বরূপ চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যখাতে হুমকি সৃষ্টির কথাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না। কোনো কোনো ওষুধের দাম দ্বিগুণ হয়ে গেছে। এক লাফে ১০০-১৫০ টাকা দাম বৃদ্ধি সাধারণ পরিবারের ওপর কী অসহনীয় চাপ সৃষ্টি করে সেটা ব্যাখ্যা করে বলার প্রয়োজন পড়ে না। এতে করে শুধু জনদুর্ভোগই সৃষ্টি হচ্ছে না, স্বাস্থ্য খাতকে বিপর্যয়ের মধ্যেও ঠেলে দেওয়া হচ্ছে, এমন আশঙ্কা সংশিৱষ্টদের।
পরিস্থিতি দেখে ওষুধ সিন্ডিকেটের সাথে ওষুধ প্রশাসনের সম্পৃক্ততার সন্দেহ জোরালো হয়ে উঠলে কাউকে দোষ দেওয়া যাবে না। কারণ, তারা পরিকল্পিতভাবে পরিস্থিতি তৈরি করে। বাজারে হঠাৎ করেই কোনো কোনো ওষুধ উধাও হয়ে যায়। চাহিদা তীব্র হয়ে উঠলে বেশি দামে সে ওষুধ সরবরাহ করা হয় এবং সে দামেই না কিনে পারেন না রোগীর স্বজনেরা। এরকম কৌশল অবলম্বনের পেছনে কারা কলকাঠি নাড়ছে সেটা খুঁজে বের করা হলে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যাওয়া কঠিন কিছু নয়। এমনটা হবে কি না সেটাই প্রশ্ন।
তবে আসলেই ওষুধের উৎপাদন খরচ বেড়েছে কিনা সেটা জানা যায়নি। সমগ্র বিষয়টি খতিয়ে দেখার দায়িত্ব ওষুধ প্রশাসনের। সরকার যেখানে জনগণের স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে সচেষ্ট সেখানে ওষুধের মত অপরিহার্য পণ্যের দাম নিয়ে এমন অনিয়ম-বিশৃঙ্খলা কোনোভাবেই স্বাভাবিক বলা যাবে না। এর ফলে সরকারের উন্নয়ন প্রচেষ্টা ও সাফল্য প্রশ্নবিদ্ধ হবে, সন্দেহ নেই। কীভাবে সবার নাকের ডগায় এমন অস্বাভাবিক পরিস্থিতির জন্ম হলো সেটা ভেবে দেখার বিষয়। সিন্ডিকেট করে গলাকাটা মুনাফা লোটা বন্ধে প্রশাসনের কার্যকর পদৰেপ দেখতে চায় মানুষ।

Leave a Reply