যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৭ মার্চ পালিত

18/03/2018 1:04 am0 commentsViews: 12

গতকাল ছিল জাতির পিতা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন। সারা জাতি যথাযোগ্য মর্যাদায়, নানা আনুষ্ঠানিকতায় দিনটি পালন করেছে। এ দিন বঙ্গবন্ধুর পথে দেশকে এগিয়ে নেবার শপথ নতুন করে নিয়েছে জাতি।
বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন বাংলার মানুষ কখনও শোষিত-বঞ্চিত হবে না। তিনি সারা জীবন শোষিত-বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ে সংগ্রাম করেছেন। জুলুম-নির্যাতন সহ্য করেছেন। তার নেতৃত্বে ৬৬’র ছয় দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণ অভ্যুত্থানের পথ বেয়ে ৭০রের নির্বাচনে বাঙালিদের জয়লাভ মেনে নিতে পারেনি পাকিসৱানি সামরিক শাসক গোষ্ঠী। তাদের গণহত্যার জবাবে বীর বাঙালি অস্ত্র হাতে রম্নখে দাঁড়ায়। নয় মাসের রক্তৰয়ী মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ে জন্ম হয় স্বাধীন বাংলাদেশের। বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতা হিসেবে বরণ করে নেয়া হয়। কিন’ দেশ গড়ে তোলার সময় না দিয়েই ঘাতকের বুলেটে তার স্বপ্ন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। তবে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও ৭ মার্চ ভাষণ থেকে তার জীবন ও স্বপ্ন সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা পাওয়া যায়।
বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে এগিয়ে যাবার প্রাণপণ প্রচেষ্টায় দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছে। এর মধ্যেই আমরা স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে উন্নয়নশীল দেশে পা রেখেছি। উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা সমাজের প্রতিটি ৰেত্রেই দৃশ্যমান করে তোলাই আজ সময়ের চাহিদা।
১৭ মার্চ পালিত হয় জাতীয় শিশু দিবস হিসেবেও। বঙ্গবন্ধু শিশুদের কতটা ভালোবাসতেন সেটা বলার অপেৰা রাখে না। জীবদ্দশায় তিনি শিশুদের নিয়েই জন্মদিন পালন করতেন। তার শিশুঅনৱ প্রাণের স্মৃতিকে ধরে রাখতে শিশু সংগঠনগুলোর দাবিতে ১৭ মার্চকে জাতীয় শিশু দিবস ঘোষণা করা হয়। শিশু দিবসের নানা আয়োজনেও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাসৱবায়নের লৰ্যই তুলে ধরা হয়।
বর্তমানে দেশের ১৬ কোটি জনসংখ্যার ৬ কোটিই শিশু। এই শিশুরাই দেশের ভবিষ্যৎ। শিশুদের উন্নয়ন ছাড়া যে দেশের উন্নয়ন কাঙিৰত লৰ্য অর্জন করতে পারে না সে কথা না বললেও চলে। এ দেশের প্রতিটি শিশু যেদিন মানুষের মত মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠার অধিকার পাবে। অপুষ্টি-দারিদ্র্যের কবলমুক্ত হবে। শিৰা, স্বাস’্য, বাসস’ানের নিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে সুন্দর ভবিষ্যৎ লাভ করবে। সেদিনই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাসৱবে দৃশ্যমান হবে উঠবে বলা যায়।
আগামীতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী পালনকালে আমরা তার স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় আরও একধাপ এগিয়ে যাবো এটাই সবার কাম্য।

Leave a Reply