চাষিরা ব্যস্ত হপারের আক্রমণ রোধে

14/03/2018 2:07 am0 commentsViews: 31

কাজী নাজমুল ইসলাম: রাজশাহীর আম বাগানগুলো ছেয়ে গেছে মুকুলে। সবেমাত্র ফুল গুটি বাঁধতে শুর্ব করেছে। সংশিৱষ্টরা বলছেন এবার আমের অন ইয়ার। তাই বাম্পার (ভালো) ফলনের আশা করছেন সকলে। গত ৫ বছরে রাজশাহীতে আমবাগানের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় ৰতিকর হপারের দেখা মেলায় এর আক্রমণ রোধে আমচাষিরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।
আম চাষি ও সংশিৱষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে রাজশাহীর আম বাগানগুলোতে মুকুলের সমারহ। চাষিরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বাগানের যত্ন নিতে। কিছু বাগানে হপারের দেখা মেলায় চাষিদের ব্যস্ততা বেড়েছে। হপারকে এই অঞ্চলে অনেকে চড়চড়ি পোকাও বলে থাকেন। আম গাছের নিচে গেলে এই পোকা উড়ে নাকে মুখে বসে। আমের গুটি বাঁধার সময় মুকুলে এই পোকার আক্রমণ হলে শতভাগ ফলন নষ্ট হতে পারে বলে জানান কৃষিবিদরা। তাই এর আক্রমণ রোধে চাষিরা বাগানে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এবং কম খরচে ভালো লাভ পাওয়ায় রাজশাহীতে আম বাগানের সংখ্যা বাড়ছে প্রতি বছর। কৃষি বিভাগের তথ্যমতে গত ৫ বছরে এখানে আম বাগানের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে।
কৃষিবিদ ও ফল গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানিরা বলছেন গত বছরের চেয়ে এবার আম গাছগুলোতে অনেক বেশি মুকুল এসেছে। তাই এ বছরকে তারা আমের অন ইয়ার বলছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ভালো ফলনের আশা করছেন তারা। মুকুলে বালাইনাশক সেপ্র করতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন চাষিরা।
রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আব্দুল আলীম এ বিষয়ে বলেন, রাজশাহীর আম গাছগুলোতে এবার ভালো মুকুল এসেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবং বাগানের ঠিকমত যত্ন নেয়া হলে চাষিরা ভালো ফল পাবেন বলে আশা করছেন তিনি। তিনি বলেন, আমগাছে মুকুল আসার পর যখন ফুলগুলি কুঁড়ি অবস্থায় থাকে কিন্তু ফোটার পূর্বে একবার এবং আম মটর দানার মত আকার হবার পর আর একবার এই মোট দুইবার প্রতি লিটার পানিতে ইমিডাক্লোপ্রিড গ্র্বপের কীটনাশক হাফ মিলি: এবং ম্যানকোজেব জাতীয় ছত্রাকনাশক ২ গ্রাম একত্রে মিশিয়ে সমস্ত গাছ ভিজিয়ে সেপ্র করতে হবে। এতে হপারের আক্রমণ ও এ্যানথ্রাঙনোজ রোগ প্রতিরোধ করা যাবে। গাছে পানির অভাব হলে ফল ঝরে পড়ে। আমের গুটি মটর দানা মত হবার পর ১০-১৫ দিন পর পর ২-৩ বার পানি সেচ দিতে পারলে গুটি ঝরা বন্ধ হবে এবং ফলন বেড়ে যাবে।
রাজশাহী কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, আমের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ও ভালো লাভ পাওয়ায় প্রতি বছর রাজশাহীতে আম গাছের সংখ্যা বাড়ছে। ২০০৭-০৮ মৌসুমে রাজশাহীতে ৭ হাজার ৮৫৪ হেক্টর জমিতে আম গাছ ছিল ৬ লাখ ৭৯ হাজার ৬৮৪টি। ২০১১-১২ মৌসুমে ৮ হাজার ৯৮৬ হেক্টর জমিতে আম গাছের সংখ্যা ১০ লাখ ৬ হাজার ৮৮১টি। চলতি মৌসুমে রাজশাহীতে আম বাগান রয়েছে ১৭ হাজার ৪২০ হেক্টরে। যেখানে আম গাছের সংখ্যা প্রায় ৮৪ লাখ ৩৭ হাজার ৪৭৪ টি।

Leave a Reply