গ্রপ্তারের লজ্জায় পুঠিয়ার স্কুলছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’

12/03/2018 2:06 am0 commentsViews: 109

স্টাফ রিপোর্টার: অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে গ্রেপ্তারের লজ্জায় রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার এক স্কুলছাত্রী ‘আত্মহত্যা’ করেছেন। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে সাততলা একটি ভবন থেকে লাফ দেয় সে। তেজগাঁও শিল্প এলাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে মারা যায় সে।
নিহত মেয়েটির নাম সূচনা খাতুন (১৮)। সে পুঠিয়া পৌর সদর এলাকার কালীতলা মহলৱার সাইফুল ইসলামের মেয়ে। পরিবারের দাবি, অসামাজিক কাজের অভিযোগে পুলিশ সূচনাকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায়। পরে জামিন নিয়ে ঢাকায় গিয়ে আত্মহত্যা করে সে।
সূচনার দাদা অলিউর রহমান বলেন, আমার বাড়িতে অসামাজিক কাজ হয়, এমন কথা বলে গত বৃহস্পতিবার রাতে আমার নাতনি সূচনাকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। সে সময় সন্দেহজনকভাবে আরও দুই যুবককেও আটক করে পুলিশ। পরদিন শুক্রবার দুপুরে তাদের আদালতে তোলা হয়।
ওই দিন আদালতে জামিনের আবেদন করলে আদালত আমার নাতনিকে জামিন দেন। জামিনে বাড়ি আসার পর লজ্জায় আমার নাতনি ও পুত্রবধূ শনিবার সকালে ঢাকার তেজগাঁওয়ের পূর্ব নাখালপাড়া বোনের বাড়িতে চলে যায়। সেখানেই সে ছাদ থেকে লাফ দেয়।
সূচনার খালা আফিয়া বেগম বলেন, আমার বোন তার দুই মেয়েকে নিয়ে শনিবার বিকালে আমার বাসায় আসে। রাত ৯টার দিকে সূচনা সাততলা ভবনের ছাদ থেকে লাফ দেয়। এতে সে গুর্বতর আহত হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে তেজগাঁও শিল্প এলাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সে মারা যায়।
পুঠিয়া বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সাত্তার বলেন, সূচনা আমাদের বিদ্যালয়ের ভোকেশনাল বিভাগ থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। শারীরিক অসুস্থতার কারণে সে কয়েকটি পরীক্ষা দিতে পারেনি।
পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকার অভিযোগে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। পরে দুই যুবকসহ ওই মেয়েকে আটক করে আদালতে পাঠায়। এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা হয়েছে। মেয়েটি মারা গেছে কি না সেটি আমার জানা নেই।

Leave a Reply