বিজ্ঞানমনষ্কতাই শিশুদের সুনাগরিক করবে

19/01/2018 2:04 am0 commentsViews: 52

বিজ্ঞান ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়। তাই উন্নয়নের জন্য বিজ্ঞান চর্চার প্রসার অপরিহার্য। এ জন্য বিজ্ঞানভিত্তিক শিৰা ব্যবস্থার দাবি বহু পুরানো। সুদূর অতীতেও শিৰা আন্দোলনের অন্যতম দাবি ছিল এটি। কিন্তু বিজ্ঞানভিত্তিক একমুখী শিৰা ব্যবস্থার অভাব পূরণ হয়নি আজও। তার জন্য অবশ্য বিজ্ঞান চর্চা আটকে থেকেছে সেটা বলা যাবে না।
বিভিন্ন শিৰা প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা বিভিন্নভাবে বিজ্ঞান চর্চাকে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এৰেত্রে বিজ্ঞান মেলা আয়োজনের ভূমিকা অস্বীকার করা যাবে না। রাজশাহী বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণাগারের (বিসিএসআইআর) উদ্যোগে তিন দিনব্যাপি বিজ্ঞান ও শিল্প প্রযুক্তি মেলায় রাজশাহী অঞ্চলের ৪৩টি স্কুল ও কলেজের শিৰার্থী ও উদ্ভাবকরা তাদের বিজ্ঞানভিত্তিক আবিস্কার নিয়ে হাজির হয়েছিলেন। সেখানে তারা ব্যাটারিচালিত গাড়ি চলাচল সুষ্ঠু করাসহ অনেক দরকারি যন্ত্রাদিও প্রদর্শন করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।
এই অনুষ্ঠানের আলোচকদের মুখেও বর্তমান প্রজন্মের ৰুদে বিজ্ঞানীদের বাংলাদেশকে প্রযুক্তি শীর্ষে পৌঁছে দেবার ভূমিকার কথা শোনা গেছে। এ ধরনের মেলায় অংশ গ্রহণের মাধ্যমেই নিজেদের সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করার সুযোগ পেতে পারে শিশু-কিশোররা। যা তাদেরকে বিজ্ঞানমনষ্ক এবং নিত্য নতুন উদ্ভাবনে উৎসাহিত করে তুলবে, জোর দিয়েই বলা যায়।
এৰেত্রে সরকারের উৎসাহ ও পৃষ্ঠপোষকতায় বিশেষ করে প্রযুক্তি ৰেত্রে দেশের অগ্রগতি যে দৃশ্যমান তা বলার অপেৰা রাখে না। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন খাতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি চর্চাই দেশের অগ্রগতি তরান্বিত করবে, সন্দেহ নেই। বিশেষ করে আগামী দিনের নাগরিক হিসেবে শিশু-কিশোরদের বিজ্ঞান মনষ্কতাই তাদের সুনাগরিক করে তোলার পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের গতিকেও বেগবান করবে না বললেও চলে।
তবে এ পথ মোটেই সমস্যাহীন নয়। বিদ্যমান সমস্যাগুলি সঠিকভাবে চিহ্নিত করে সেগুলোর সমাধানে পরিকল্পিত পদৰেপ নেয়ার ওপরেই নির্ভর করছে সম্ভাবনা বাস্তবায়ন। একমাত্র তাহলেই দেশের কাঙিৰত উন্নয়ন নিশ্চিত হবে।

Leave a Reply