সংবিধান অনুযায়ী হবে আগামী নির্বাচন

14/01/2018 1:04 am0 commentsViews: 14

ৰমতাসীন মহাজোট সরকারের টানা দ্বিতীয় মেয়াদের চার বছর পূর্তি উপলৰে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি সময়ের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন। ভাষণে তিনি স্পষ্ট ভাষায় সংবিধান মেনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। সরকারের সফলতা ও আগামী দিনের কর্মসূচি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য দেশজুড়ে আলোচনার জন্ম দিয়েছে।
তিন মেয়াদে ১৪ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে ‘সোনার বাংলা’ হিসেবে গড়ে তুলতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে তার প্রচেষ্টার কথা উলেস্নখ করে বলেন, বাংলার মানুষ যেন অন্ন পায়, বস্ত্র পায়, উন্নত জীবনের অধিকারী হয়- জাতির পিতার এই উক্তি সর্বদা তার হৃদয়ে অনুরণিত হয়। তার একটাই প্রচেষ্টা, কীভাবে বাংলাদেশের মানুষের জীবনকে অর্থবহ করব, স্বচ্ছল ও সুন্দর করে গড়ে তুলব। দেশের গণতান্ত্রিক ধারাকে সমুন্নত রাখার আশা প্রকাশ করে তিনি নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত সকল দলের আগামী সাধারণ নির্বাচনে অংশ নেয়ার ওপর গুরম্নত্ব আরোপ করেন। নির্বাচন পরিচালনায় নির্বাচন কমিশনকে সর্বোতভাবে সহায়তা দেবার আশ্বাসও দেন তিনি। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে অরাজক পরিসি’তি সৃষ্টির অপচেষ্টা সম্পর্কে জনগণকে সতর্ক থাকার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন বয়কট করে আন্দোলনের নামে জনগণের জানমালের ৰতি কেউ মেনে নেবে না।
বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তোলার লৰ্যে প্রয়োজনীয় কর্মসূচি প্রণয়ন করে সেগুলো বাসৱবায়নে সচেষ্ট থাকার উলেস্নখ করে প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে সরাসরি ভোট না চেয়ে অতীতের ভুল-ত্রম্নটি শুধরে সামনে এগিয়ে যাওয়ার কথা বলে জনগণের অব্যাহত সমর্থন কামনা করেন।
বাংলাদেশে উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে গণতান্ত্রিক ব্যবস’ার ধারাবাহিকতা রৰার বিকল্প নেই। এজন্য আগামী সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক ও গ্রহণযোগ্য করা গুরম্নত্বপূর্ণ। নির্বাচন কমিশন যদি যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনে সৰম হয় তবে নির্বাচন নিয়ে জনমনের অজানা আশঙ্কা কেটে যাওয়া সময়ের বিষয় হয়ে উঠবে।
আমরা জনগণের আশা-আকাঙৰা বাসৱবায়নে সংশিস্নষ্ট সবার যথাযোগ্য ভূমিকার ওপর আস’া ও বিশ্বাস রাখতে চাই। এৰেত্রে সরকার ও বিরোধী রাজনৈতিক দলসমূহের দিকেই সবার সতর্ক দৃষ্টি যে কোন বিশৃঙ্খলা রোধে গুরম্নত্বপূর্ণ, বলার অপেৰা রাখে না। শানিৱ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে দেশের মালিক হিসেবে জনগণের ইচ্ছার বাসৱবায়নই হোক সবার কাম্য।

Leave a Reply