অধ্যাপক আনিসুজ্জামান পেলেন জগত্তারিণী পদক

13/01/2018 1:04 am0 commentsViews: 4

এফএনএস: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান-কে জগত্তারিণী পদক দিয়েছে কল-কাতা বিশ্ববিদ্যালয়। গত বৃহস্পতি-বার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমা-বর্তন অনুষ্ঠানে এ সম্মাননার ঘোষণা দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন অধ্যা-পক আনিসুজ্জামানের ছেলে আনন্দ জামান। তিনি বলেন, সমাবর্তনে তার বাবার থাকার কথা থাকলেও অসুস’তার কারণে তিনি যেতে পারেননি। জগত্তারিণী পদক পাওয়ার বিষয়ে গতকাল শুক্রবার অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, পুরস্কারটি আসলে অনেক প্রখ্যাত ব্যক্তিরা আগে পেয়েছেন। তাদের সঙ্গে আমার নামটি যুক্ত হওয়ায় আমি গর্বিত। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে দুই বছর পর পর ‘জগত্তারিণী পদক’ দিয়ে থাকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। বাঙালি শিক্ষাবিদ, গণিতজ্ঞ ও আইনবিদ ব্যারিস্টার স্যার আশুতোষ মুখার্জির মা জগত্তারিণী দেবীর নামে ১৯২১ সালে প্রবর্তিত এ সম্মাননা প্রথম পান কবিগুরম্ন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। গত ৯৭ বছরে প্রমথ চৌধুরী, কাজী নজরম্নল ইসলাম, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়সহ বাংলা সাহিত্যের বিভিন্ন প্রথিতযশা লেখককে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। এবার সম্মাননা পাওয়া অধ্যাপক আনি-সুজ্জামানের জন্ম ১৯৩৭ সালের ১৮ ফেব্রম্নয়ারি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগনা জেলার বসিরহাটে। ভারত ভাগের পর তারা এপারে চলে আসেন। শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পোস্ট ডক্টরাল ডিগ্রিধারী এই শিক্ষাবিদ গবেষণা করেছেন বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস নিয়েও। গবেষণা গ্রন’ রচনার পাশাপাশি অনুবাদ ও সম্পাদনার ক্ষেত্রেও গুরম্নত্বপূর্ণ অব-দান রেখেছেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববি-দ্যালয়ের আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যা-লয়ে শিক্ষকতা করা অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের এই ভূখ-ে ধর্মান্ধতা ও মৌলবাদবিরোধী নানা আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের এই ইমেরিটাস অধ্যাপক একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নিয়েছেন। বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১৫ সালে বাংলা-দেশ সরকারের দেওয়া স্বাধীনতা পুরস্কারও পেয়েছেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। এর আগে ২০১৪ সালে পেয়েছেন ভারতের তৃতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাব ‘পদ্ম-ভূষণ’। এছাড়া বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে কাজের জন্য ১৯৭০ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও ১৯৮৫ সালে একুশে পদক পান তিনি।

Leave a Reply