এমন দুর্ভোগের অবসান জর্বরি

07/01/2018 2:04 am0 commentsViews: 17

দেশের উন্নয়নে প্রবাসী আয় বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের প্রবাসী বাংলাদেশীদের পাঠানো রেমিটেন্সের ভূমিকা নিয়ে বলার অপেৰা রাখে না। তবে তাদের দুর্ভোগের খবরও অজানা নয়। এৰেত্রে সেখানকার দূতাবাস কর্মীদের ভূমিকার সমালোচনাও নতুন নয়। তাদের অসহযোগিতার অভিযোগ জানিয়েও যে লাভ হয় না এমন অভিযোগও প্রায়ই শোনা যায়। তবে এবার সার্ভারের কারণে পাসপোর্ট সেবা না পাওয়ায় হাজার হাজার বাংলাদেশীর দুর্ভোগে পড়ার খবর এসেছে পত্রিকায়। এই দুর্ভোগের অবসান নিয়েও নিশ্চিতভাবে বলার কেউ নেই।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) দুবাইয়ে বাংলাদেশ কনসুলেটের সার্ভার ২৮ ডিসেম্বর খারাপ হলেও তা কবে ঠিক হবে সেটা জানা যাচ্ছে না। ফলে পাসপোর্ট করা, ভিসা ও লাইসেন্স নবায়ন, দেশে ফেরাসহ সব কাজই অচল হয়ে পড়েছে। এ জন্য দুবাই, শারজাহ, আজমান, ফুজেইরাহ, রাসাল খাইমাহ, উম্মুল কুয়েইন অঞ্চলে কর্মরত বাংলাদেশীরা চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন।
এনিয়ে সেখানকার বাংলাদেশ দূতাবাসের পৰ থেকে প্রবাসীদের অসুবিধা স্বীকার করে বিষয়টি ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি আকারে জানিয়েই দায়িত্ব সারা হয়েছে। পাসপোর্ট গ্রাহকদের আবুধাবিসহ বাংলাদেশ দূতাবাসে গিয়ে সেবা নেবার পরামর্শও দেয়া হয়েছে। তবে সেখানকার জনবলে প্রতিদিন তিন চারশ গ্রাহককে পাসপোর্ট সেবা দেয়া কোনোভাবেই সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন সংশিৱষ্টরাই। তাই সার্ভার ঠিক না হওয়া পর্যন্ত দুর্ভোগের শেষ হবে না বলাই যায়। ২০১০ সালে সার্ভার সংযোজনের পর থেকে এতদিন ব্যবহারে এ ধরনের বিপর্যয় স্বাভাবিক হলেও তা নিয়ে সময়মতো সতর্কতার অভাবেই আজকের দুর্ভোগ কিনা সেটাও ভেবে দেখার বিষয়। ডিজিটালাইজেশন নিয়ে যখন এত কথা শোনা যায় তখন দিনের পর দিন সার্ভার নষ্ট থাকলে কী ধরনের সমস্যায় পড়তে হয় সেটা ধারণা করা কঠিন নয়। পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়ায় নবায়ন করতে না পারায় ভিসা জটিলতায় নাকানিচুবানি খেতে হচ্ছে ঠিক কতজনকে সেটা বলা মুস্কিল। তবে এর দায় দায়িত্ব নেবার কেউ আছে বলে মনে হয় না।
এছাড়াও দূতাবাসে এসে যথাযথ সেবা দূরে থাক সন্তোষজনক আচরণ না পাওয়ার অভিযোগও কম নয়। সিকিউরিটিদের গলাধাক্কা খাবার অভিজ্ঞতাও রয়েছে অনেক বাংলাদেশীর। অর্থাৎ প্রবাসেও শ্রমজীবী বাংলাদেশীরা বাংলাদেশীদের দ্বারাই অবহেলা, বঞ্চনার শিকার কোনো অংশে কম নয়। এমন অবস্থায় পরিবর্তন কবে হবে সেটা বলা কঠিন।
তবে যারা বিদেশে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দেশের জন্যও অবদান রাখেন তাদের দুর্ভোগ একটু বেশি মনোযোগ দাবি করতেই পারে। এমন দুর্ভোগের অবসান জর্বরি বলেই আমরা মনে করি।

Leave a Reply