ছাত্রীদের ওপর হামলা ছাত্রদের কাজ নয়

08/12/2017 1:04 am0 commentsViews: 7

সারা দেশের মত শিৰাঙ্গনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রৰায় সরকার সব সময়ই সচেষ্ট। কিন্তু অনেক ৰেত্রে তা ভেস্তে যাচ্ছে সরকার সমর্থক নামধারীদের বাড়াবাড়ির কারণে। তবে সংশিৱষ্টদের তাৎৰণিক পদৰেপ যে পরিস্থিতির স্বাভাবিকতা রৰায় গুর্বত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে সেটাও জানা কথা।
বুধবার রাজশাহী নগরীতে ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি (আইএইচটি) ছাত্রীদের ওপর হামলা ও মারপিটের ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদেরই দায়ী করা হয়েছে। এই ঘটনার জেরে তাৎৰাণিকভাবে শাখার ৪ নেতাকে বহিষ্কারসহ শাখা কমিটি বিলুপ্ত করার সিদ্ধান্ত স্বস্তিদায়ক বলা যায়। শিৰাঙ্গনে এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা শিৰার পরিবেশকেই নষ্ট করে না, শিৰা প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তিকেও ৰুণ্ন করে।
এ মাসের শুর্বতে অভিযুক্তদের বির্বদ্ধে নির্যাতন ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়ার লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পরও প্রতিষ্ঠান প্রধান কেন হাত গুটিয়ে রেখে পরিস্থিতি অবনতির সুযোগ করে দিয়েছেন সেটা বোঝা কঠিনই। সেই অভিযোগের বিচার চাইতে গিয়েই নতুন করে হামলার শিকার হতে হয়েছে নির্যাতিত শিৰার্থীদের। ঘটনাস্থলে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও পুলিশের কার্যকর ভূমিকাও দেখা যায় নি। তারা হামলাকারীদের রোধ করতে পারেনি, কাউকে আটকও করতে পারেনি। বিষয়টি প্রশ্ন না জাগিয়ে পারে না।
নানা কারণেই শিৰাঙ্গনের পরিবেশ কলুষিত হয়। এ জন্য জড়িত ব্যক্তি বা সংগঠন এবং শিৰা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপৰের দায় অস্বিকার করা যায় না। এ ৰেত্রে সংগঠন তাৎৰণিকভাবে দৃঢ়সিদ্ধান্ত নিলেও সংশিৱষ্ট কর্তৃপৰের কার্যকর ভূমিকা দেখা যায়নি। কেন ছাত্রী হোস্টেলে নিরাপত্তার দাবি উঠবে? এ অবস্থা কি হঠাৎ করে সৃষ্টি হয়েছে? সময় থাকতে বহিরাগত বা প্রাক্তন শিৰার্থীদের উৎপাত, সিটবাণিজ্য, চাঁদাবাজিসহ অনৈতিক কাজের অভিযোগ নিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নিলে এমন ন্যক্কারজনক ঘটনার জন্ম হতো না, এটা জোর দিয়েই বলা যায়।
এ ধরনের ঘটনার সাথে কোনো সাধারণ শিৰার্থী জড়িত থাকতে পারে না। একইভাবে বলা যায়, ছাত্রীদের ওপর হামলা কোনো ছাত্রের কাজ হতে পারে না। ছাত্র নামধারীদের ন্যক্কারজনক কাজের দায় শিৰার্থী বা ছাত্র সংগঠন মেনে নিতে পারে না। নেয়া উচিৎ নয়।
এমন ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হলে এর পুনরাবৃত্তি ঠেকানো যে কঠিন সেটা না বললেও চলে। আমরা সুষ্ঠু বিচারের অপেৰায় রইলাম।

Leave a Reply