সড়ক দুর্ঘটনায় ৰতিপূরণ মামলা

05/12/2017 4:04 am0 commentsViews: 11

সড়ক দুর্ঘটনার খবর নেই এমন দিন পাওয়া যাবে না। প্রায় প্রতিদিনই দেশের এখানে ওখানে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহত ও ৰয়ৰতির খবর আসছে মিডিয়ায়। তবে দুর্ঘটনার সংখ্যা, হতাহত ও ৰয়ৰতির হিসাব জানা অসম্ভবই বলা যায়। পত্র-পত্রিকায় সব খবর ঠিকমতো আসে না। থানায় মামলাও হয় না সব ঘটনায়। তাই বছরে সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা ৫-৬ হাজার এ নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও এর ভয়াবহতা অস্বীকার করা যাবে না।
সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে আইন থাকলেও তার কার্যকারিতার নিশ্চয়তা দেয়া কঠিন। এ নিয়ে মামলা মোকদ্দমার চাইতে আপস-মীমাংসার ঘটনাই বেশি। কারণ সব পৰই এ থেকে কিছু না কিছু লাভবান হয়। তাই দায়ী ব্যক্তি বা পৰ আড়ালেই থেকে যায়। সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ বা এর বিচারে কার্যকর ব্যবস্থা না দেখে মানুষ যেন সেটা নিয়তি বলেই মেনে নিয়েছে।
অথচ একটি দুর্ঘটনা এক বা একাধিক পরিবারের জন্য সারা জীবনের দুঃখ ডেকে আনে। কর্মৰম ব্যক্তির হঠাৎ মৃত্যু বা পঙ্গু হওয়ার যে ৰতি তা কোনোভাবেই পূরণ হওয়া সম্ভব না হলেও এর বিচার ও দোষী ব্যক্তির শাস্তি হলে তা কিছুটা শান্তি দিতে পারে ৰতিগ্রস্তদের। এৰেত্রে ৰতিপূরণের ব্যবস্থা যে ভুক্তভোগীদের কষ্ট কমাতে পারে, সেটা বলার অপেৰা রাখে না। কিন্তু সেটাও থাকে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।
গত রোববার হাইকোর্ট এ বিষয়ে একটি সাড়া জাগানো রায় দিয়েছেন। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদের মৃত্যুর ঘটনায় ৰতিপূরণ চেয়ে দায়ের করা মামলার রায়ে নিহতের পরিবারকে চার কোটি ৬১ লাখ ৭৫ হাজার ৪৫২ টাকা ৰতিপূরণের নির্দেশ এবং এখন থেকে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বা আহতদের পরিবার ৰতিপূরণের মামলা করতে পারবে বলা হয়েছে।
প্রচলিত আইনে এ সুযোগ থাকলেও বাস্তবতা এমনই যে কাউকে মামলায় যেতে দেখা যেত না। অর্থাৎ আইনের প্রয়োগ যথাযথ ছিল বলা যাবে না। কেন, তা নিয়ে কারও মাথা ব্যথাও লৰ্য করা যায় না। এখন হাইকোর্টের এই রায় অবস্থার পরিবর্তন কতটুকু ঘটায় সেটা দেখার বিষয়। তাছাড়া সড়ক দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ উদ্ঘাটন করাও গুর্বত্বপূর্ণ। বিষয়টি যে বহুমাত্রিক সেটা বলাই বাহুল্য।
সড়ক দুর্ঘটনায় দায়ী চিহ্নিত করে বিচারে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা যেমন জর্বরি তেমনি এ সংক্রান্ত মামলার সুষ্ঠু পরিচালনা নিশ্চিত করাও গুর্বত্ববহ। এৰেত্রে ৰতিগ্রস্তদের এগিয়ে না আসার পেছনে যে কারণ তা দূর না হলে পরিস্থিতির উন্নতি আশা করা যায় না। বিষয়টা যে এতদিন মোটেই গুর্বত্ব পায়নি সেটা কি অস্বীকার করা যায় ?
এসব বিষয়ে নজর না দিলে হাইকোর্ট সড়ক দুর্ঘটনায় আহত-নিহতের পরিবার ৰতিপূরণের মামলা করতে পারবে, এমন রায় দিলেও তার কার্যকারিতা দেখতে অপেৰা না করে উপায় কি?

Leave a Reply