ফ্লিনের কর্মকা- ছিল আইনসম্মত : ট্রাম্প

04/12/2017 2:02 am0 commentsViews: 4

এফএনএস আনৱর্জাতিক ডেস্ক : গত শনিবার টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প লিখেছেন, ‘জেনারেল ফ্লিনকে আমি বরখাসৱ করেছি। কারণ তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট ও এফবিআইকে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। নিজের ঘনিষ্ঠ সহযোগী মাইকেল ফ্লিনের রম্নশ সংযোগের বিষয়ে অবশেষে মুখ খুলেছেন ট্রাম্প। দৃশ্যত ফ্লিনের রম্নশ সংযোগের বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন ট্রাম্প। তবে অনৱর্বর্তীকালীন সময়ে তার ওই কাজকে আইনসম্মত বলে মনে করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তখন ফ্লিন তার দোষ স্বীকারও করেছিলেন। এটা খুবই লজ্জাজনক। কিন্তু আমার অনৱর্বর্তীকালীন টিমের সদস্য থাকা অবস্থায় তিনি অবৈধ কিছু করেননি। এখানে লুকানোর কিছু নেই।’ আপাতদৃষ্টিতে ট্রাম্প শিবিরের রম্নশ সংযোগের ঘটনায় মাইকেল ফ্লিনকে দোষারোপ করা হলেও সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, ফ্লিন একা সবকিছু করেননি। ট্রাম্প শিবিরের রম্নশ সংযোগ নিয়ে দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসে যেদিন প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়; ওই দিনই এ টুইট করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, গত গ্রীষ্মে এফবিআই-এর একজন প্রবীণ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স এজেন্টকে সরিয়ে দেওয়া হয়। ওই ব্যক্তি মার্কিন নির্বাচনে রম্নশ সংযোগ তদনৱকারী রবার্ট মুলারের টিমে কর্মরত ছিলেন। ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, অনৱর্বর্তীকালীন টিমের শীর্ষ কর্মকর্তাদের ইমেইলগুলো বলছে মাইকেল ফ্লিন স্বাধীনভাবে রম্নশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। রম্নশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে কথোপকথনের জের ধরে চলতি বছরের ফেব্রম্নয়ারিতে ফ্লিনকে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ ছাড়তে বাধ্য করেন ট্রাম্প। অজুহাত তোলা হয় দায়িত্বে অবহেলার। এরপর থেকেই রাশিয়ার সঙ্গে তার সংশিস্নষ্টতা নিয়ে তদনেৱ নামে এফবিআই ও সিনেট ইন্টেলিজেন্স কমিটি। মার্কিন নির্বাচনে রম্নশ হসৱৰেপের তদনেৱ নিয়োজিত বরার্ট মুলার ফ্লিনের বিরম্নদ্ধে ‘জানার পরও ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা, বানোয়াট ও প্রতারণামূলক বিবৃতি দেওয়া’র অভিযোগ আনেন। একপর্যায়ে দায়মুক্তির শর্তে সাৰ্য দিতে রাজি হন তিনি। গত শুক্রবার আদালতে হাজির হয়ে ফ্লিন দোষ স্বীকার করেন। আদালত ফ্লিনের স্বীকারোক্তি পাওয়ার পর তার দায়মুক্তি নিশ্চিত করে। পাশাপাশি এ-সংক্রানৱ মামলার নথিগুলো উন্মুক্ত করে দেয়। সেই নথিগুলো পর্যালোচনা করে রম্নশ সংযোগের বাইরেও তথ্য মিলেছে। এতে ইসরায়েলের সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের আঁতাতের আলামত পাওয়া গেছে।

Leave a Reply