সই করেও স’গিত কাতালুনিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা

12/10/2017 1:04 am0 commentsViews: 9

এফএনএস ডেস্ক: গণভোটের ‘রায়’ মেনে স্পেন থেকে আলাদা হয়ে স্বাধীন কাতালুনিয়া রাষ্ট্র গঠনের ঘোষণাপত্রে সই করেছেন কাতালান প্রেসিডেন্ট কার্লোস পুজদেমন ও অঞ্চলিক নেতারা; তবে তা এখনই কার্যকর হচ্ছে না। মাদ্রিদের সঙ্গে আলোচনার জন্য স্বাধীনতার চূড়ানৱ ঘোষণা দেওয়ার বিষয়টি তারা কয়েক সপ্তাহ পিছিয়ে দিয়েছেন বলে জানানো হয়েছে বিবিসির এক প্রতিবেদনে। কাতালান নেতাদের সই করা স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলা হয়েছে, “কাতালান প্রজাতন্ত্রকে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে আমরা সকল রাষ্ট্র ও সংস’ার প্রতি আহ্বান জানাই। তাদের এই পদৰেপকে তাৎৰণিক-ভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে মাদ্রিদ। স্পেন সরকারের বিরোধিতা ও আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেৰা করে কাতালুনিয়ার মানুষ গত ১ অক্টোবর যে গণভোটে অংশ নেয়, সেখানে প্রায় ৯০ শতাংশ ভোট কাতালুনিয়ার স্বাধীনতার পৰে পড়ে বলে কাতালান সরকারের ভাষ্য। তবে বিবিসি লিখেছে, কাতালুনিয়ার স্বাধীনতা-বিরোধীরা নির্বাচন বয়কট করায় ভোট পড়েছে মাত্র ৪৩ শতাংশ। নির্বাচনে বিভিন্ন অনিয়মেরও খবর পাওয়া গেছে। ভোট ঠেকাতে স্পেনের কেন্দ্র সরকারের পুলিশ সেদিন মাঠে ছিল। স্বাধীনতাপনি’ ভোটারদের কেন্দ্র থেকে সরাতে তাদের শক্তিপ্রয়োগের ছবি এসেছে আনৱর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোতে। ভোটের ওই ফলাফলকে অবৈধ ঘোষণা করেছে মাদ্রিদ। স্পেনের সাংবিধানিক আদালত এর ফল স’গিত করেছে। গণভোটের রায় পৰে গেলে স্বাধীনতার পথ সুগম করতে গত মাসে একটি আইন পাস করে কাতালুনিয়ার আঞ্চলিক সরকার। পুজদেমনের আহ্বান পেলে সেই আইন অনুযায়ী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে স্বাধীনতা ঘোষণা করতে পারত কাতালান পার্লামেন্ট। কিন’ পার্লা-মেন্টে পুজদেমনের ভাষণ সামনে রেখে ইউরোপের প্রভাবশালী দেশ-গুলো তার উপর চাপ বাড়াচ্ছিল, যাতে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা না দেন। পার্লামেন্টে দেওয়া ভাষণে পুজদেমন বলেন, মাদ্রিদ থেকে আলাদা হতে হবে- এটাই জনগণের রায়। তবে এ নিয়ে যে উত্তাপ তৈরি হয়েছে, তা প্রশমনের পৰে তিনি। আমরা সবাই একই সমাজের মানুষ। আমাদের সবাইকে একসঙ্গেই এগিয়ে যেতে হবে। আর সেই অগ্রগতি আসতে পারে গণতন্ত্র ও শানিৱর পথে। পুজদেমন এও বলেছেন, অতীতে কাতালুনিয়ার মানুষকে নিজেদের সিদ্ধানৱ নেওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তাদের ওপর অনেক বেশি করের বোঝা চাপিয়ে দিয়েছে মাদ্রিদ সরকার। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে সই করলেও পার্লামেন্টকে তিনি এর কার্যকারিতা আপাতত স’গিত রাখতে বলেন, যাতে স্পেন সরকারের সঙ্গে আলো-চনার পথ খোলা থাকে। এর জবাবে স্পেনের স্পেনের উপ-প্রধানমন্ত্রী সোরায়া সায়েনজ দে সানৱামারিয়া বলেছেন, পুজদেমন বা অন্য কেউ এরকম দাবি করার অধিকার রাখেন না, আলোচনা তারা চাপিয়ে দিতে পারেন না। কোনো আলোচনা করতে হলে তা হতে হবে আইনের মধ্যে।
সানৱামারিয়া বলেন, পুজদেমন কাতালুনিয়াকে এই পর্যায়ে নিয়ে এসে ইতিহাসের সবচেয়ে অনিশ্চয়-তার মুখোমুখি ঠেলে দিয়েছেন। আজ যে বক্তৃতা তিনি দিয়েছেন, সেটা এমন এক ব্যক্তির বক্তব্য, যিনি জানেন না তিনি কোথায় আছেন, কোথায় তিনি যাচ্ছেন অথবা কাদের তিনি সঙ্গে নিতে চান। সর্বশেষ পরিসি’তি পর্যালোচনার জন্য মন্ত্রি-সভার অতি জরম্নরি বৈঠক ডেকেছেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখয়। সম্পদশালী কাতালুনিয়া স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত একটি অঞ্চল। প্রায় ৭৫ লাখ বাসিন্দার এই অঞ্চলের ভাষা ও সংস্কৃতিও আলাদা। স্পেনের মোট জনসংখ্যার ১৬ শতাংশের বসবাস কাতালুনিয়ায়। দেশের মোট রপ্তানি আয়ের ২৫.৬ শতাংশ এ অঞ্চল থেকেই আসে। মোট বিদেশি বিনিয়োগের ২০.৭ শতাংশ পাওয়া কাতালুনিয়াই স্পেনের জিডিপির ১৯ শতাংশের যোগান দেয়। গৃহযুদ্ধের আগে কাতালুনিয়া আরও বেশি স্বায়ত্তশাসন পেলেও ১৯৩৯ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যনৱ জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর স্বৈরশাসনের সময় তা নানাভাবে খর্ব করা হয়। ফ্রাঙ্কোর মৃত্যুর পর কাতালান জাতীয়তাবাদ ফের শক্তিশালী হতে শুরম্ন করে, আন্দোলনের মুখে ১৯৭৮ সালে তাদের স্বায়ত্তশাসন ফিরিয়ে দেওয়া হয়। স্পেনের পার্লামেন্ট ২০০৬ সালে নতুন আইন করে কাতালুনিয়ার আঞ্চলিক সরকারের হাতে আরও কিছু ৰমতা দেয়। কাতালানদের দেওয়া হয় জাতির মর্যাদা। কিন’ পরে স্পেনের সাং-বিধানিক আদালতে সেসব বাতিল হয়ে যায়। ইউরোপীয় ইউনিয়ন স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, স্পেন থেকে আলাদা হয়ে গেলে কাতালুনিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নেও থাকবে না।

Leave a Reply