আমনে কারেন্ট পোকা, চাষিরা দুশ্চিন্তায়

09/10/2017 1:09 am0 commentsViews: 26

কাজী নাজমুল ইসলাম: ভরা মৌসুমে রাজশাহীর তানোর-গোদাগাড়ীসহ অন্যান্য উপজেলার আমন ৰেতে কারেন্ট পোকার (বাদামী গাছ ফড়িং) আক্রমণ দেখা দিতে শুর্ব করেছে। এতে আবাদের ৰতির আশংকায় চাষিরা দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। আমন আবাদে ৰতির হাত থেকে রৰায় পোকার আক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে এজন্য কৃষি কর্মকর্তারা সার্বৰণিক চাষিদের পাশে থেকে মাঠের দিকে নজর রাখছেন।
সংশিৱষ্ট সুত্রে জানা গেছে, আমনের ভরা মৌসুমে রাজশাহীর তানোর-গোদাগাড়ীসহ বিভিন্ন উপজেলায় কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা দিতে শুর্ব করেছে। পোকার আক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেদিকে সার্বৰণিক নজর রাখছেন কৃষি কর্মকর্তারা। জানা যায়, সমপ্রতি কারেন্ট পোকার আক্রমণ বেশি দেখা দেয় তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলায়। এই পোকার আক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে ফসলের ব্যাপক ৰতি হয়। তাই ফসলের ৰতির আশংকায় চাষিরা দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে পোকা দমনে কৃষি বিভাগ তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা গ্রহণ করায় পোকার আক্রমণ রোধ করা সম্ভব হয়েছে বলে জানান সংশিৱষ্টরা। পোকার আক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে দিকে সার্বৰণিক নজর রেখেছেন কৃষি বিভাগ।
সংশিৱষ্ট সূত্র জানায়, সাধারণত খরাপ্রবণ বরেন্দ্র এলাকায় কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা দেয়। রাজশাহীর তানোর ও গোদাগাড়ী বরেন্দ্র এলাকা হওয়ায় এখানে এর আক্রমণ বেশি হয়। কিন্তু এবার দফায় দফায় পর্যাপ্ত বৃষ্টি হওয়ায় পোকার আক্রমণ সেভাবে ছড়াতে পারেনি। তাপমাত্রা কমলে এই পোকার আক্রমণ এমনিতেই কমে যায়। আর শীতের আমেজ দেখা দিতে শুর্ব করলে কারেন্ট পোকার আক্রমণ আর থাকবে না।
রাজশাহী কৃষি সমপ্রসারণের উপপরিচালক কৃষিবিদ দেব দুলাল ঢালী এ ব্যাপারে বলেন, এই সময় আমন ৰেতে সাধারণত কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা দেয়। রাজশাহীর তানোর -গোদাগাড়ীসহ কয়েক জায়গা থেকে এই পোকা আক্রমণের খবর পাওয়া যায়। সেখানে তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা নেয়ায় আক্রমণ রোধ করা গেছে। পোকার আক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য কৃষি কর্মকর্তারা মাঠের দিকে সব সময় নজর রাখছেন।
তিনি আরো বলেন, রাজশাহীর তানোর-গোদাগাড়ী খরাপ্রবণ বরেন্দ্র এলাকা হওয়ায় এখানে এই পোকার আক্রমণ হবার বেশি আশঙ্কা থাকে। এজন্য একমাস আগে থেকেই এই দুই উপজেলাসহ অন্যান্য উপজেলায় চাষিদের সজাগ রাখতে ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া হয়। যেসমস্ত উপজেলায় পোকার আক্রমণ কম হয়, সেখানকার কিছু কর্মকর্তাকে ওই দুই উপজেলায় সাময়িক দায়িত্ব দেয়া হয়। বিভিন্ন উপজেলায় মতবিনিময়, লিফলেট বিতরণ করা হয়। যার ফলে পোকার আক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পরেনি।
রাজশাহী কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, চলতি মৌসুমে রাজশাহীতে আমন চাষের লৰমাত্রা ধরা হয়েছিল ৭০ হাজার ২২৪ হেক্টর জমিতে। আবাদ হয়েছে ৭৩ হাজার ৮৮৭ হেক্টরে। এরমধ্যে বন্যার কারণে নষ্ট হয়েছে ২ হাজার ৫৭৩ হেক্টর জমির আমন ধানের আবাদ।

Leave a Reply