আলু চাষিদের রৰায় এগিয়ে আসুন

05/10/2017 1:04 am0 commentsViews: 27

আলুর উৎপাদনবৃদ্ধিতে বিপাকে পড়েছেন আলুচাষি, ব্যবসায়ী ও কোল্ডস্টোরেজ মালিকেরা। কারণ বাজার দামে আলু বিক্রি করে খরচ উঠছে না। এই লোকসান পোষাতে না পারলে আগামীতে আলুর উৎপাদন কমে যাবে নির্ঘাৎ।
এখন কোল্ডস্টোরেজে রাখা প্রতি বস্তা (৮৫ কেজি) আলু বিক্রি হচ্ছে ৯০০ থেকে হাজার টাকায়। অথচ উৎপাদন-সংরৰণসহ প্রতিবস্তা আলুতে মোট খরচ হয় এর চেয়ে বেশি। উৎপাদক চাষিদের ৰেত্রে ১২শ থেকে ১৩শ টাকা আর ব্যবসায়ীদের ৰেত্রে ১৫শ থেকে ১৬শ টাকা। অর্থাৎ বস্তাপ্রতি আলুতে লোকসান গুনতে হচ্ছে ২/৩শ থেকে ৫/৬শ টাকা।
এ অবস্থায় কোল্ডস্টোরেজের আলু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরাও। রাজশাহীর ৩১টি কোল্ডস্টোরেজে সংরৰিত ৫০ লাখ বস্তার বেশিরভাগই এখনও রয়ে গেছে। অন্যান্য বছর এমনটা দেখা যায় না। এ সময় বেশিরভাগ আলুই বিক্রি হয়ে যায়। আর ২/৩ মাসের মধ্যে নতুন আলু উঠবে। তাই স্টোরে জমে থাকা আলু নিয়ে ব্যবসায়ীদের মত কোল্ডস্টোরেজ মালিকরাও দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। যারা ঋণ নিয়ে আলু চাষ করেছেন তাদের দুশ্চিন্তা আরও বেশি।
সবাই কৃষককে উৎপাদন বাড়াতে উৎসাহ দেয়। কৃষক উৎপাদন বাড়িয়েছে বলেই দেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। এৰেত্রে সরকারি প্রণোদনা অস্বীকার করে যাবে না। কিন্তু বাড়তি উৎপাদন নিয়ে কৃষকের সমস্যা সমাধানে সরকার যদি এগিয়ে না আসে তবে কৃষকের হতাশা উৎপাদনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলবে, এটা নিশ্চিত। তাছাড়া কোল্ড স্টোরেজ মালিকরা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে মাঠ পর্যায়ে আলুচাষিদের দিয়ে থাকেন। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সে ঋণ পরিশোধে সৃষ্ট অনিশ্চয়তাও আর্থিক খাতের ৰতির কারণ হয়ে উঠতে পারে, অস্বীকার করা যাবে না।
কৃষি খাতে এই যে অনিশ্চয়তা এটা গুর্বত্ব দাবি করে। আমাদের দেশ এখনও কৃষি নির্ভর। কৃষিভিত্তিক শিল্প বিকাশের ওপরই টেকসই উন্নয়ন নির্ভর করে। তাই বৃহত্তর স্বার্থেই আলু সমস্যার সমাধানে সবার এগিয়ে আসা দরকার। সরকার আলু উৎপাদনের স্বার্থে ন্যায্যমূল্যে আলু কিনে বন্যাদুর্গত ও রোহিঙ্গাদের ত্রাণ হিসেবে দেবার ব্যবস্থা করতে পারে। আলু উৎপাদনে দেয়া ঋণ বা সুদ মওকুফ করতেও পারে। এছাড়া ভিজিএফ-ভিজিডি ও সরকারি রেশনে অন্যান্য খাদ্যপণ্যের সাথে আলুও দেবার সিদ্ধান্ত সমস্যাটির স্থায়ী সমাধান হতে পারে। আর পরিকল্পিতভাবে রপ্তানি করার উদ্যোগ আলু চাষে নতুন পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে, জোর দিয়ে বলা যায়।
তবে আলু সমস্যার সমাধানে সংশিৱষ্টরা সোচ্চার না হলে কিছুই হবে না। আলু চাষি-ব্যবসায়ী-কোল্ডস্টোরেজ মালিকরা সংগঠিতভাবে প্রচেষ্টা নিলে বর্তমান দুর্ভোগ পাল্টে যাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র।

Leave a Reply