এফএনএস: দেশের বাজার থেকে সকল প্রকার এনার্জি ড্রিংকস তুলে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বাজারে কোনো এনার্জি ড্রিংকসই থাকবে না। আর বাজারে যেসব এনার্জি ড্রিংকস বিক্রি হচ্ছে সেগুলো বৈধ নয়। কারণ বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) নির্ধা-রিত কোনো প্রকার জাতীয় মান এনার্জি ড্রিংকসের নেই। অথচ প্রতিটি এনার্জি ড্রিংকসের বোতলের লেবেলে বিএসটিআইয়ের লোগো রয়েছে। এনার্জি ড্রিংকস বাজার-জাতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো এতো দিন বিএসটিআই থেকে কার্বোনেটেড বেভারেজের লাইসেন্স নিয়ে বাজারে এনার্জি ড্রিংকস বিক্রি করে আসছিল। তবে এখন থেকে আর বাজারে এনার্জি ড্রিংকস থাকবে না বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপৰ (বিএফএসএ) সংশিৱষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশিৱষ্ট সূত্র মতে, বাজার থেকে সব ধরনের এনার্জি ড্রিংকস তুলে নেয়ার পাশাপাশি যেসব এনার্জি ড্রিংকস আমদানি করা হয় সেগুলোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করবে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপৰ (বিএফ-এসএ)। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বিএস-টিআই, কাস্টমস এবং সংশিৱষ্ট সবাইকে চিঠি দিয়ে এ নির্দেশনার কথা জানানোর উদ্যোগ নিয়েছে বিএফএসএ। ফলে বিএসটিআইয়ের কাছ থেকে যারাই কার্বোনেটেড বেভারেজের জন্য লাইসেন্স নেবে, তাদের শুধু বিডিএস ১১২৩:২০১৩ কার্বোনেটেড বেভারেজেস মানের মধ্যে থেকে উৎপাদন করতে হবে।
সূত্র জানায়, বিএফএসএ বিভিন্ন এনার্জি ড্রিংকস পরীৰা করে ৰতিকর মাত্রায় ক্যাফেইনের উপসি’তি পেয়েছে। কার্বোনেটেড বেভারেজে ক্যাফেইনের মাত্রা প্রতি কেজিতে ১৪৫ এমজি থাকার কথা থাকলেও বাজার চলতি এনার্জি ড্রিংকসগুলোতে পাওয়া গেছে ৩২০ এমজিরও বেশি। তাছাড়া সমপ্রতি মাদকদ্রব্য অধিদপ্তর নন-ব্র্যান্ডের কিছু এনার্জি ড্রিংকস পরীৰা করে সেগুলোতে ভায়াগ্রার উপাদান পেয়েছে। সেগুলো মূলত আমদানি করে আনা হয়। এমন পরিসি’তিতে এনার্জি ড্রিংকস জাতীয় মান প্রণয়ন না করার নীতিগত সিদ্ধান্ত এবং কার্বোনেটেড বেভারেজ ছাড়া এনার্জি ড্রিংকস বা অন্য কোনো নামে পণ্য উৎপাদন বা আমদানি ও বাজারজাত না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
এদিকে এ প্রসঙ্গে বিএফএসএর সদস্য মাহবুব কবির জানান, কার্বো-নেটেড বেভারেজের নামে লাইসেন্স নিয়ে এতো দিন যারা এনার্জি ড্রিংকস বাজারজাত করেছে, এখন তারা তা আর পারবে না। বাজারে যাদের এনার্জি ড্রিংকস আছে তাদের চিঠি দিয়ে সেগুলো তুলে নেওয়ার নির্দেশ দেয়া হবে। পাশাপাশি যাতে এনার্জি ড্রিংকস আমদানি বন্ধ হয়, সেজন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও কাস্টমসকেও চিঠি দেয়া হবে।