এফএনএস: আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশের রাজনীতিতে অশুভ শক্তির পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে।
তিনি বলেন, সরকারের কাছে তথ্য আছে, বিএনপি এবং তার দোসররা আন্দোলনের নামে সহিংসতা ও নাশকতার ছক আঁটছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন। একই সঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী কাদের জানান, বিএনপির সঙ্গে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেবে না আওয়ামী লীগ; তবে বিশৃঙ্খলা করলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে। সামপ্রতিক রাজনীতি এবং দলের করণীয় নিয়ে আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর-দৰিণ ও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের যৌথ সভার আয়োজন করা হয়। সভার শুর্বতেই দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, একটি অশুভ মহল দেশকে অসি’তি-শীল করার ষড়যন্ত্র করছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের রাজনীতি, রাজনৈতিক অঙ্গনে অশুভ শক্তির পদধ্বনি শুনতে পাচ্ছি। বিএনপিসহ তাদের সামপ্রদায়িক দোসররা আন্দোলনের নামে নাশকতার ছক আঁকছে। সহিংসতার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। এটাই আমাদের কাছে মেসেজ আছে। এ সময় জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমালোচনা করে কাদের বলেন, সামপ্রতিক এক জরিপে দেখা গেছে, দেশের ৬৬ শতাংশ মানুষ প্রধানমন্ত্রীকে এবং ৬৪ শতাংশ মানুষ আওয়ামী লীগকে সমর্থন করে। অথচ এই বিশাল অংশকে বাদ যে ঐক্য প্রক্রিয়া, তার কোনো ভবিষ্যৎ নেই। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর বিএনপির সমাবেশ প্রসঙ্গ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, পাল্টা কর্মসূচি দেবে না আও-য়ামী লীগ। পাশাপাশি কোনো সং-ঘাতে না জড়াতে এবং কারো উসকানির ফাঁদে পা না দিতে দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন তিনি।
তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে কোনো উদ্বেগ নাই, তবে সতর্কতা আছে। আমরা সতর্ক আছি। বিএনপি সমাবেশ ডেকেছে, এখন আমাদের পাল্টা কর্মসূচি নেই। সারা দেশে আমাদের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস’ায় থাকবে এটাই আমাদের নির্দেশ। দেশজুড়ে শহর, থানা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস’ানে থাক-বেন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের সম্পাদক-ম-লীর জর্বরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির সভাটা কবে হবে, এটা তো এখনও ঠিক হয়নি। বিএনপি জোর করে ২৯ তারিখে করবে? কেন এই জেদাজেদি? অনুমোদন ছাড়া আপনি সভা করবেন, এত লাফালাফি কেন? ১০ বছরের ১০ মিনিটও রাস্তায় নামতে পারেন নাই। এখন আপনি হঠাৎ করে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে খুশি করে ব্যর্থতা ঢাকার জন্য লাফালাফি করছেন। এত লাফালাফির পরিণাম শুভ হবে না। হুমকি-ধমকি দিয়ে আন্দোলন করবেন, আমরা ঘরে বসে ডুগডুগি বাজাবো, তা হবে না? আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, আমরা সরকারি দল, আমা-দের ভরা কলসি, ভরা কলসি নড়ে না। যাদের শূন্য কলসি তারাই ফাঁকা আওয়াজ করে। আমাদের উত্তেজিত হওয়ার প্রয়োজন নাই। আমরা কারো উস্কানির ফাঁদে পা দিবো না। দেশের মানুষ খুশি, নির্বাচন হবে। পরি-বেশটা শান্তিপূর্ণ থাকবে এটাই আমরা চাই। আমরা নির্বাচনের জন্য সুশৃঙ্খলভাবে সংগঠিত হচ্ছি। দেশের অর্ধেক অংশে আমাদের নির্বাচনী প্রস’তি সম্পন্ন হয়েছে। এ সময়ে কেন আমরা সংঘাত করবো, আমরা তো ৰমতায় আছি। আমরা পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি করবো না।