রামেক হাসপাতালে নার্সকে মারপিট, আটক ২

13/08/2017 1:05 am0 commentsViews: 19

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে সিনিয়র স্টাফ নার্সকে মারপিটের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাসহ দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সকালে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
আটককৃতরা হলেন, মতিহার থানার হরিয়ান ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক, রাজশাহী কলেজের অনার্স সমাজ-কর্ম বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র হিমেল ও তার পিতা জাহাঙ্গীর আলম। আটককৃতদের বির্বদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে।
এদিকে ঘটনার বিচারের দাবিতে উত্তেজিত নার্সরা ২ ঘণ্টা কর্ম থেকে বিরত থাকেন। এতে করে ভোগান্তিতে পড়েন রোগীরা।
রামেক হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ফারজানাকে দেখতে আসেন তার ভাই হিমেল ও পিতা জাহাঙ্গীর আলম। এরপর সিনিয়র নার্স ফেরদৌসীর কাছে বোনের শারীরিক অবস’া জানতে চান হিমেল। এ সময় উভয়ের মধ্যে বাকবিত-া হয়। এক পর্যায়ে উক্ত নার্স হিমেলের গালে চড় মারে। এতে করে উত্তেজিত হয়ে হিমেল ও তার পিতা জাহাঙ্গীর আলম নার্স ফেরদৌসিকে ধাক্কাধাক্কিসহ গালে চড় থাপ্পর মারেন। এ সময় র্বমা (১৯) নামে অপর একজন নার্স এগিয়ে আসলে তাকেও মারপিট করে তারা। এদিকে খবর পেয়ে তাৎৰণিক পুলিশ সেখান থেকে হিমেল ও তার পিতাকে আটক করে।
এ খবর জানাজানি হলে বিচারের দাবিতে উত্তেজিত নার্সরা রামেক হাসপাতাল পরিচালকের অফিস র্বমের সামনে হাজির হয়। এ সময় সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টাব্যাপী নার্সরা কর্ম থেকে বিরত থাকেন। এ কারণে ভোগান্তির মধ্যে পড়েন রোগীরা। পরে হাসপাতাল পরিচালক বিচারের আশ্বাস দিলে পরিসি’তি শান্ত হয় এবং নার্সরা তাদের কাজে যোগ দেন।
এ ব্যাপারে রামেক হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএফএম রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন বলেন, সিনিয়র স্টাফ নার্স ফেরদৌসিসহ আরো কয়েকজন নার্সকে মারপিটের ঘটনায় হিমেল ও তার পিতা জাহাঙ্গীর আলমকে পুলিশ আটক করেছে। তাদের বির্বদ্ধে রাজপাড়া থানায় মামলা হয়েছে। হাসপাতালের পরিসি’তি স্বাভাবিক রয়েছে, নার্সদের কোন কর্মবিরতি ছিল না বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply